শনিবার , ৫ জানুয়ারি ২০১৯ | ২২শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  1. আইন ও অপরাধ
  2. আজকের আবহাওয়া পূর্বাভাস
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আপনার স্বাস্থ্য
  5. ইতিহাসের এই দিনে
  6. উত্তরাঞ্চলের খবর
  7. উপজেলা পরিষদ নির্বাচন
  8. কৃষি, অর্থ ও বাণিজ্য
  9. খেলাধুলা
  10. চাকরির খবর
  11. দেশ প্রতিদিন
  12. ধর্ম ও জীবন
  13. নারী ও শিশু
  14. প্রতিদিনের কথা
  15. প্রতিদিনের রাশিফল

আমরা হেরেছি মানেই সব শেষ হয়ে যায়নি : মির্জা ফখরুল

প্রতিবেদক
admin2022
জানুয়ারি ৫, ২০১৯ ৬:১২ অপরাহ্ণ

বিজয় ডেস্ক: ভোটকে কেন্দ্র করে এমন ন্যক্কারজনক ঘটনায় বাংলাদেশের রাজনীতিতে একটা দীর্ঘস্থায়ী ক্ষতের সৃষ্টি হলো বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। বলেছেন, এর মাধ্যমে দেশ আবারও অন্ধকার যুগে প্রবেশ করেছে।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ চক্রান্ত এবং ষড়যন্ত্রের মধ্য দিয়ে নির্বাচনের নিষ্ঠুর তামাশায় অবস্থান করেছে। আওয়ামী লীগের সঙ্গে জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক আধিপত্যবাদী শক্তি বাংলাদেশের মানুষকে পুরোপুরি ভাবে প্রতারিত করেছে এবং জনগণের যে অধিকার সেই অধিকার থেকে বঞ্চিত করেছে।

শনিবার (৫ জানুয়ারি) বিকেল ৩টায় নোয়াখালী জেলা আইনজীবী সমিতি কার্যালয়ে এক আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন তিনি।

মির্জা ফখরুল বলেন, এতে করে আওয়ামী লীগ এবং প্রশাসন জনগণ থেকে সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন হয়ে জনগণের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে গণশত্রুতে পরিণত হয়েছে। আমরা সত্য ও ন্যায়ের ওপর দাঁড়িয়ে আছি আর চোরাবালির ওপর দাঁড়িয়ে আছি। ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর বাংলাদেশের একটি সরকার তার সমস্ত প্রশাসন দিয়ে ৭১-এর হায়নাদের মতো ঝাঁপিয়ে পড়ল।

নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বিএনপির এই মহাসচিব বলেন, আমরা হেরেছি মানেই সব শেষ হয়ে যায়নি। হতাশ হবার কিছু নেই। এ নির্বাচনে তারা জনবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। তরুণদেরকে- যুবকদেরকে বলছি, দেশকে রক্ষা করার জন্য ছুটুন, অধিকার আদায়ের জন্য ছুটুন, গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনতে হবে, দেশ নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে আনতে হবে। কারাবন্দি নেতাকর্মীদের মুক্ত করে আনতে হবে।

আপনারা একা নন সারা বাংলাদেশের ১৬ কোটি বাঙালি আপনাদের সাথে আছে। আপনাদের ক্রোধকে শক্তিতে রুপান্তরিত করুন। আর কত অত্যাচার সহ্য করব। বেগম জিয়া কারাগারে, সন্তানের জন্য পিতার অপেক্ষা, স্বামীর জন্য স্ত্রীর অপেক্ষা কবে শেষ হবে বলেও উল্লেখ করেন ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, নির্বাচনের পূর্বে, নির্বাচনের দিন এবং পরবর্তীতে যে সহিংসতা আওয়ামী লীগ করেছে তাতে অসংখ্য মানুষ আহত হয়েছে, পঙ্গু হয়েছে। এমনকি আমার বোন নোয়াখালীর ৪ সন্তানের জননী ধর্ষিত পর্যন্ত হয়েছে। আমরা এই সব ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি এবং জনগণের কাছে এই সব ঘটনার বিচার দিচ্ছি।

তিনি আরো বলেন, আপনারা যারা দায়িত্বে আছেন বিশেষ করে নির্বাচন কমিশনের কাছে আমরা বলেছি এই সহিংসতা সম্পূর্ণভাবে বন্ধ করার জন্য। তাদের উচিত হবে এই সহিংসতা বন্ধ করা। এই সহিংসতার বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে জনগণের প্রতি আহ্বানও জানান ফখরুল।

এ সময় জেএসডির সভাপতি আ.স.ম আব্দুর রব, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী, বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান মো. শাজাহান, যুগ্ম-মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দীন খোকন, হারুনুর রশিদ, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানী, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জয়নুল আবেদীন ফারুক, মিডিয়া উইংয়ের কর্মকর্তা শামসুদ্দিন দিদার, শায়রুল কবির খান প্রমুখ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

বিকেল ৩টায় নোয়াখালী আইনজীবী হলরুমে জেলা বিএনপি আয়োজিত মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ ঐক্যফ্রন্ট নেতারা। মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা বিএনপির সভাপতি গোলাম হায়দার বিএসসি এবং সঞ্চালনা করেন জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুর রহমান।

সর্বশেষ - ফিচার