শুক্রবার , ৪ জানুয়ারি ২০১৯ | ১০ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  1. আইন ও অপরাধ
  2. আজকের আবহাওয়া পূর্বাভাস
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আপনার স্বাস্থ্য
  5. ইতিহাসের এই দিনে
  6. উত্তরাঞ্চলের খবর
  7. উপজেলা পরিষদ নির্বাচন
  8. কৃষি, অর্থ ও বাণিজ্য
  9. খেলাধুলা
  10. চাকরির খবর
  11. দেশ প্রতিদিন
  12. ধর্ম ও জীবন
  13. নারী ও শিশু
  14. প্রতিদিনের কথা
  15. প্রতিদিনের রাশিফল

লালমনিরহাটের মানুষ মোতাহার হোসেনকে মন্ত্রী হিসেবে দেখতে চাই

প্রতিবেদক
admin2022
জানুয়ারি ৪, ২০১৯ ৩:২৩ অপরাহ্ণ

লালমনিরহাট প্রতিনিধি: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতার নিয়ে বিজয়ী হওয়ার পর নতুন মন্ত্রিসভায় কারা ঠাঁই পাচ্ছেন এ নিয়ে ইতোমধ্যে আলোচনার সৃষ্টি হয়েছে।

সারা দেশের মতোই লালমনিরহাট থেকে মহাজোটের ৩ হেভিওয়েট প্রার্থী বিজয়ী হওয়ার পর এ থেকে এবার মন্ত্রিসভায় কারা সুযোগ পাচ্ছেন এ নিয়ে আলোচনার শেষ নেই। এই আলোচনার শীর্ষে রয়েছেন ২ জন। তারা হলেন, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি’র সভাপতি মোতাহার হোসেন এমপি ও জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জি এম কাদের।

এবারের নির্বাচনসহ টানা ৪ বারের মতো লালমনিরহাট-১ (হাতীবান্ধা-পাটগ্রাম) আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন বীর মুক্তিযোদ্ধা মোতাহার হোসেন । ২০০১ সালে প্রথম বার জাতীয় পার্টির দূর্গ ভেঙ্গে সংসদ সদস্য নির্বাচত হন মোতাহার হোসেন। ২০০৫ সালে জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই জেলায় উন্নয়নে কাজ করতে শুরু করেন তিসি।

২০০৮ সালে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়ে প্রাথমিক শিক্ষায় ব্যাপক পরির্বতন এনেছেন। ২০১৪ সালের নির্বাচনে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এরশাদকে বিপুল ভোটের ব্যবধানে হারিয়ে এমপি নির্বাচিত হয়েছেন মোতাহার হোসেন। টানা ১৮ বছর ধরে লালমনিরহাট জেলার উন্নয়নে ব্যাপক ভুমিকা রেখেছেন তিনি। তার জোরালো ভুমিকার কারণে ২য় তিস্তা সড়ক সেতু ও ধরলা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে। উন্নত হয়েছে রেল ও সড়ক পথ।

জেলার অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ব্যাপক উন্নতি হয়েছে। সব মিলে জেলায় উন্নয়নের ক্ষেত্রে আর মাত্র ২০-২৫ ভাগ কাজ বাকি হয়েছে। দীর্ঘ ১৮ বছরের অভিজ্ঞতায় একমাত্র মোতাহার হোসেন এমপি’ই জানেন জেলার আর কি কি উন্নয়ন করতে হবে। তাই তিনি যদি মন্ত্রীত্ব পান তাহলে আগামী ৫ বছরে জেলার সকল উন্নয়ন কাজ শেষ করে লালমনিরহাট জেলাকে একটি মডেল জেলা হিসেবে তৈরী করা সম্ভব।

লালমনিরহাটের বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, মহাজোটের শরিক জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জি এম কাদের লালমনিরহাট সদর আসন থেকে এম পি নির্বাচিত হয়েছেন। জাতীয় পার্টিকে যদি মন্ত্রীত্ব দেয়া হয় সেই ক্ষেত্রে জি এম কাদের মন্ত্রীত্ব পেতে পারেন। জেলায় আওয়ামীলীগ ও জাতীয় পার্টির রাজনৈতিক ভারসাম্য রক্ষা করতে আওয়ামীলীগ থেকেও মন্ত্রীত্ব দেয়া প্রয়োজন।

সেক্ষেত্রে এ জেলায় আওয়ামীলীগ থেকে দুই জন সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। অনেকের মতে, মোতাহার হোসেন রাজনীতিতে অনেক অভিজ্ঞ ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতির দায়িত্বে আছেন।

তিনি মন্ত্রীত্ব পেলে গোটা জেলায় দলের সাংগঠনিক কাঠামো ধরে রাখার পাশাপাশি উন্নয়নে ভুমিকা রাখতে পারবেন। তাই আওয়ামীলীগের মাঠ পযার্য়ের নেতা-কর্মীরা মোতাহার হোসেনের মন্ত্রীত্ব দাবী করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে।

সর্বশেষ - ফিচার