বৃহস্পতিবার , ৬ ডিসেম্বর ২০১৮ | ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  1. আইন ও অপরাধ
  2. আজকের আবহাওয়া পূর্বাভাস
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আপনার স্বাস্থ্য
  5. ইতিহাসের এই দিনে
  6. উত্তরাঞ্চলের খবর
  7. উপজেলা পরিষদ নির্বাচন
  8. কৃষি, অর্থ ও বাণিজ্য
  9. খেলাধুলা
  10. চাকরির খবর
  11. দেশ প্রতিদিন
  12. ধর্ম ও জীবন
  13. নারী ও শিশু
  14. প্রতিদিনের কথা
  15. প্রতিদিনের রাশিফল

কেশবপুরে কৃষকদের বিরুদ্ধে ভাটা মালিকের মামলা

প্রতিবেদক
admin2022
ডিসেম্বর ৬, ২০১৮ ৮:৩০ অপরাহ্ণ

কেশবপুর (যশোর) থেকে আব্দুল মজিদ: যশোরের কেশবপুরে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা ইট ভাটা মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশে জেলা প্রশাসন ও উপজেলা প্রশাসন বন্ধ করে দেয়ায় ভাটা মালিক এলাকার কৃষকদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করছে বলে ভুক্তভোগী কৃষক ও কৃষাণীরা কেশবপুর প্রেসক্লাবে বুধবার সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে অভিযোগ করেন। এলাকার পক্ষে পারভিনা বেগম লিখিত বক্তব্যে বলেন, হয়রানি মুলক মামলায় উপজেলার সাতাবাড়িয়া বাজারের ১০০ গজ দূরে অবস্থিত সুপার ব্রিকস নামের ইটভাটা। ওই ভাটার চারপাশে উচ্চ ফলনশীল কৃষি জমি। তাছাড়া পরিবেশ দুষিত হবে এ কারণে ভাটা স্থাপনের বিরুদ্ধে এলাকাবাসি বিভিন্ন স্থানে অভিযোগ দেয়াসহ আন্দোলন সংগ্রাম করেছেন। গ্রামবাসি গত বছর ১৮ জানুয়ারী বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) দারস্ত হয়। বেলা কর্তৃপক্ষ ভাটার সকল কার্যক্রম বন্ধের জন্যে ওই ভাটার মালিক ফারুকুল ইসলামকে লিগ্যাল নোটিশ দেন। কিন্তু ভাটা মালিক তারপরও জোরপূর্বক ৪ ফেব্রুয়ারী গভীর রাতে ভাড়াটে লোক এনে ভাটার চারপাশে কাঁটা তারের বেড়ায় বিদ্যুতায়িত করে ইট উৎপাদন শুরু করে। এক পর্যায়ে বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির ( বেলা) এলাকাবাসির পক্ষে ওই ভাটার বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিট পিটিশন করেন। যার নং- ৪৭৯৩/১৭। গত বছর ২৩ এপ্রিল হাইকোর্টের দ্বৈত বেঞ্চ বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও মো. আশরাফুল কামাল সুপার ব্রিকস ইট ভাটার সকল প্রকার কার্যক্রম বন্ধ রাখার নির্দেশে রায় ঘোষণা করেন। পারভিনা বেগম সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেন চলতি বছর ওই ভাটা মালিক হাইকোর্টের রায়কে অমান্য করে তার ওই ভাটায় ইট উৎপাদন শুরু করে। এরপর উপজেলা প্রশাসন আবারও নিষেধ করলেও ভাটা মালিক তার গুরুত্ব না দিয়ে ইট উৎপাদন অব্যাহত রাখে। অবশেষে গত ১৫ নভেম্বর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নেতৃত্বে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, পুলিশ, র‌্যাব ও ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা অভিযান চালিয়ে সুপার ব্রিকস ইটভাটাসহ ৩ ভাটার কার্যক্রম বন্ধ করে সাইন বোর্ড ঝুলিয়ে দেয়। এরপর থেকে ওই ভাটা মালিক একটি বাঁশের চাটাই দিয়ে ঘেরা ঘরে আগুন দিয়ে ইট ভাটার বিরুদ্ধে রীটকারী কৃষকদের নামে মিথ্যা ও হয়রানিমূলক মামলা দিয়ে হয়রানি অব্যাহত রেখেছে বলে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়।

সর্বশেষ - ফিচার