বুধবার , ২৮ নভেম্বর ২০১৮ | ২২শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  1. আইন ও অপরাধ
  2. আজকের আবহাওয়া পূর্বাভাস
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আপনার স্বাস্থ্য
  5. ইতিহাসের এই দিনে
  6. উত্তরাঞ্চলের খবর
  7. উপজেলা পরিষদ নির্বাচন
  8. কৃষি, অর্থ ও বাণিজ্য
  9. খেলাধুলা
  10. চাকরির খবর
  11. দেশ প্রতিদিন
  12. ধর্ম ও জীবন
  13. নারী ও শিশু
  14. প্রতিদিনের কথা
  15. প্রতিদিনের রাশিফল

সাবেক মেয়র খোকাসহ চারজনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড

প্রতিবেদক
admin2022
নভেম্বর ২৮, ২০১৮ ১২:২১ অপরাহ্ণ

ঢাকা: ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের (ডিসিসি) আর্থিক ক্ষতিসাধনের মামলায় সাবেক ডিসিসি মেয়র ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকাসহ চারজনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড হয়েছে। একই সঙ্গে তাদের ২০ লাখ টাকা অর্থদণ্ডও করা হয়েছে।

বুধবার বেলা ১১টার দিকে ঢাকার বিভাগীয় বিশেষ জজ মিজানুর রহমান খানের আদালত এ রায় দেন।

খোকা ছাড়া দণ্ডিত তিন আসামি হলেন- ডিসিসির ইউনিক কমপ্লেক্স দোকান মালিক সমিতির সভাপতি আবদুল বাতেন নকী, সাধারণ সম্পাদক মাহমুদ হাসান আজাদ ও গুডলার্ক কারপার্কিংয়ের ব্যবস্থাপক এইচএম তারেক আতিক।

মামলার প্রধান আসামি সাদের হোসেন খোকা পলাতক। তিনি এখন যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করছেন।অন্য তিন আসামি জামিনে রয়েছেন।

২০১২ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর শাহবাগ থানায় দুদকের সহকারী পরিচালক মো. মাহবুবুল আলম বাদী হয়ে এ মামলা করেন।

ঢাকার বিভাগীয় বিশেষ জজ মিজানুর রহমান খান গত ১৯ নভেম্বর যুক্তিতর্ক শুনানি শেষে রায়ের এদিন ধার্য করেন।

মামলার অভিযোগে বলা হয়েছে, ক্ষমতার অপব্যবহার করে অভিযুক্তরা ডিসিসির বনানী সুপারমার্কেট কাম হাউজিং কমপ্লেক্সের বেজমেন্টের কারপার্কিং ইজারার জন্য ২০০৩ সালের দরপত্র আহ্বান করেন।

চারটি দরপত্রের মধ্যে মিজানুর রহমান নামে এক ব্যক্তি বার্ষিক এক লাখ ১০ হাজার টাকায় সর্বোচ্চ দরদাতা নির্বাচিত হন। কিন্তু পরে সাদেক হোসেন খোকা অন্য আসামিদের সঙ্গে পরস্পর যোগসাজশে ইজারার কার্যক্রম স্থগিত করেন।

এর মাধ্যমে ডিসিসির ফেব্রুয়ারি-২০০৩ থেকে ফেব্রুয়ারি-২০১১ সাল পর্যন্ত ৩০ লাখ ৮২ হাজার ৩৯৯ টাকা ক্ষতি করেন এ চারজন।

এ ঘটনায় ২০১২ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর শাহবাগ থানায় দুদকের সহকারী পরিচালক মো. মাহবুবুল আলম বাদী হয়ে মামলা করেন।

পরে ওই বছরের ৮ নভেম্বর ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিমের আদালতে সাদেক হোসেন খোকাসহ চারজনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করে দুদক।

সাদেক হোসেন খোকার বিরুদ্ধে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ মো. কামরুল হোসেন মোল্লা ২০১৫ সালের ২৯ নভেম্বরে চার্জ গঠন করে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। পরে মামলাটি বিচারের জন্য ঢাকার বিভাগীয় বিশেষ জজ আদালতে পাঠানো হয়।

উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস ও কিডনি রোগের উন্নত চিকিৎসার জন্য ২০১৪ সালে সাদেক হোসেন খোকা যুক্তরাষ্ট্রে যান। এখনও তিনি সেখানেই অবস্থান করছেন ।

সর্বশেষ - ফিচার