বুধবার , ১৮ এপ্রিল ২০১৮ | ৯ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  1. আইন ও অপরাধ
  2. আজকের আবহাওয়া পূর্বাভাস
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আপনার স্বাস্থ্য
  5. ইতিহাসের এই দিনে
  6. উত্তরাঞ্চলের খবর
  7. উপজেলা পরিষদ নির্বাচন
  8. কৃষি, অর্থ ও বাণিজ্য
  9. খেলাধুলা
  10. চাকরির খবর
  11. দেশ প্রতিদিন
  12. ধর্ম ও জীবন
  13. নারী ও শিশু
  14. প্রতিদিনের কথা
  15. প্রতিদিনের রাশিফল

হাতীবান্ধায় নদীর জেগেউঠা চর কেটে অবৈধ্য বালু উত্তোলন নদী ভাঙ্গনে ক্ষতিগ্রস্থ্য মানুষের বাধা প্রশাসন নীরব

প্রতিবেদক
admin2022
এপ্রিল ১৮, ২০১৮ ৯:১৩ অপরাহ্ণ

হাতীবান্ধা (লালমনিরহাট) প্রতিনিধিঃ সম্প্রতি লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার উত্তর ধুবনী এলাকায় তিস্তা নদীর জেগে উঠা চর কেটে অবৈধ্যভাবে বালু উত্তোলনের মহাউৎসব ফসলী জমি ভেঙ্গে যাচ্ছে। এলাকাবাসির অভিযোগ রহস্যেজনক কারনে গুরুত্ব দিচ্ছেনা প্রশাসন। উপজেলার সিংগীমারী ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড উত্তর ধুবনী এলাকার ৬০% পরিবারের জমি ভিটে মাটি তিস্তা নদীর গর্ভে বিলিন হয়ে যাওয়ায় অসংখ্য নিয়তি সম্পদশালী পরিবারকে উপহার দিয়েছে ভিক্ষার ঝুলি। এমতাবস্থায় গতবর্ষা মৌসুমে ওই ধরনের পরিবারের ভেঙ্গে যাওয়া জমিতে জেগে উঠেছে প্রদ্বিপ এবং বালুচর। এসব চরে অনেকে গম,পিয়াজ,ভুট্রাসহ বিভিন্ন ফসল চাষ করছে। এমনিবস্থায় এক শ্রেনির অসাদু ব্যবসায়ী শুকিয়ে যাওয়া নদীর এবং জেগে উঠা বালুচর কেটে ১০/১২টি ট্রাকটর দিয়ে দিবা রাত্রী বালু উত্তোলন এবং বহন করে বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতার এবং প্রভাবশালী ব্যাক্তির পুকুর ভরাট ও নিচু জমি উচ্চুঁ করছে। নিচ্ছে মোটা অংকের ফায়দা করে। জমির মালিকগণ নিরুপায় হয়ে আবাদী জমি ও জেগে ওঠাচর রক্ষার দাবী জানীয়ে উপজেলা সংশ্লিষ্ট সকল প্রশাসনের নিকট লিখিত অভিযোগ করেও বন্ধ হয়নি বালু উত্তোলন। রহস্যজনক কারনে প্রশাসন নিরব রয়েছে। ফলে অসাদু ব্যবসায়ীগণ বালু উত্তোলনের মহাউৎসব চালিয়ে যাচ্ছে। গত ১৬এপ্রিল বিকালে সড়েজমিনে গিয়ে দেখা গেছে একের পর এক ট্রাকটর বালু নিয়ে আসছে। ফলে বালু অপসরন স্থানের দুই ধারে ভেঙ্গে যাচ্ছে গর্ত হচ্ছে আবাদী জমি। এসময় বালু কে নিচ্ছে কোথায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে জবাবে ট্রাকটর চালক আতিকুল ইসলাম জানান বালু সিংগিমারী ইউপি চেয়ারম্যান দুলুর খানেরবাজার সংলগ্ন নীচু জমি ভরাট করা হচ্ছে। অপর এক ক্ষমতাসিন দলের কর্মী ইব্রাহিম জানান শাহ আলমের মাধ্যমে বালু খড়িদ করে আঃ মান্নান পুকুর ভরাট করছে। এমতাবস্থায় টংভাঙ্গা ইউপি সাবেক চেয়ারম্যান সেলিম হোসেন বালু ক্রয় করছে। এসম নদীতে ভেঙ্গে যাওয়া জমির মালিক মহির আলী, মুকুল মিয়া, আমিনুর রহমান, নাসির উদ্দিন সহ অনেকে জানান, আমাদের শত বাধাঁ উপেক্ষা করে বালুনিয়ে যাচ্ছে তারা। উলটো তারা আমাদেরকে ভয় ভিতি ও হুমকি প্রদর্শন করছে। আরও জানান তারা ইউএনও সহ উপজেলার সংশ্লিষ্ট সকল প্রশাসনের নিকট লিখিত অভিযোগ করেও কোন সুফল পাওয়া যায়নি। কোথায় অভিযোগ করলে ফল পাওয়া যাবে, বালু উত্তোলন বন্ধ হবে জানতে চেয়ে অনুরোধ জানান তারা। বালু উত্তোলন বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান মনোয়ার হোসেন দুলুর সাথে কথা হলে চেয়ারম্যান জানান, আমি উর্ধতন কৃতপক্ষের অনুমতি সাপেক্ষে প্রয়োজনিয় বালু উত্তোলন করছি। কিন্তু অন্যান্য অনেকেই অনুমতি ছারাই বালু উত্তোলন করে ব্যবসা করছে। বিষয়টি নিয়ে ইউ এন ওর সাথে যোগাযোগ করা হলে ইউএনও আমিনুল ইসলাম জানান বালু উত্তোলন অবৈধ্য অভিযোগ হাতে আসলে প্রয়োজনিয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সর্বশেষ - ফিচার