হিলি বন্দরে আমদানি কমলেও বেড়েছে রাজস্ব আদায় » NewsBijoy24 । Online Newspaper of Bangladesh.
ঢাকা ০৫:৫১ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

হিলি বন্দরে আমদানি কমলেও বেড়েছে রাজস্ব আদায়

দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দরে ভারত থেকে পণ্য আমদানি কমলেও গত অর্থ বছরের তুলনায় রাজস্ব আদায় বৃদ্ধি পেয়েছে। এখন পর্যন্ত জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) রাজস্ব আদায়ের লক্ষমাত্র নির্ধারণ করেনি। তবে গত অর্থ বছরের প্রথম ছয় মাসের তুলনায় চলতি অর্থ বছরে ৪৮ কোটি টাকা বেশি রাজস্ব আদায় হয়েছে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ডলার সংকটের কারণে একদিকে যেমন আমদানি কমেছে অপরদিকে পেঁয়াজ ও জিরা আমদানিতে শুল্ক বৃদ্ধি ও অধিক শুল্কায়নের পণ্য আমদানি বেশী হওয়ায় রাজস্ব আদায় বেড়েছে। হিলি কাস্টমস এর তথ্য মতে,চলতি অর্থ বছরের প্রথম জুলাই মাসে ৩১ কোটি ৮০ লাখ, আগস্ট মাসে ৪৩ কোটি ৯২ লাখ, সেপ্টেম্বর মাসে ৩৮ কোটি ৩৯ লাখ, অক্টম্বর মাসে ৩৬ কোটি ৭২ লাখ, নভেম্বর মাসে ৫২ কোটি ৯৭ লাখ ও ডিসেম্বর মাসে ৫৭ কোটি ৪০ লাখ টাকা রাজস্ব আদায় হয়েছে। এবং ৬ লাখ ৭০ হাজার টন পণ্য আমদানি হয়েছে। এবং গত অর্থ বছরের প্রথম ছয় মাসে ৭ লাখ ৩ হাজার টন পন্য আমদানির বিপরীতে ২১৩ কোটি ১৬ লাখ টাকা রাজস্ব আদায় হয়েছে। অর্থৎ গত অর্থ বছরের তুলনায় ৩৩ হাজার টন পণ্য আমদানি কম হলেও ৪৮ কোটি টাকা রাজস্ব আদায় বেশী হয়েছে। হিলি স্থলবন্দরের আমদানি-রপ্তানিকারক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তক জানান, এলসি জটিলতার কারণে চাহিদা মতো পণ্য আমদানি করা যাচ্ছে না। সেই সাথে আগে যেখানে প্রতিকেজি জিরা আমদানিতে ৯৬ টাকা শুল্ক দিতে হতো এখন ২৩০ টাকা শুল্ক পরিশোধ করতে হয়। সেই সাথে ভারত সরকার পেঁয়াজের রপ্তানী মূল্য ৩২০ ডলার থেকে ৮শ ডালার নির্ধারণ করায় প্রতিকেজি পেঁয়াজ আমদানিতে ৪ টাকার পরিবর্তে ৯ টাকা হারে শুল্ক পরিশোধ করতে হচ্ছে। ফলে আমদানি কমলেও রাজস্ব আদায় বেড়েছে। হিলি স্থল শুল্ক স্টেশনের ডেপুটি কমিশনার বায়জিদ হোসেন জানান, কেউ যাতে উচ্চ শুল্কের পণ্য আমদানি করে কম শুল্কে আমদানিকৃত পণ্য ছাড়করণ করতে না পারে সে জন্য সঠিকভাবে পরীক্ষণ ও শুল্কয়ন করা হচ্ছে। রাজস্ব আদায় বৃদ্ধির লক্ষ্যে বন্দরকেন্দ্রিক যেকোন সমস্যা সমাধানের জন্য ব্যাবসায়ীদের সাথে নিয়মিত বৈঠক করা হচ্ছে।

নিউজবিজয়২৪/এফএইচএন

নিউজবিজয় ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার দিন।

NewsBijoy24.Com

নিউজবিজয়২৪.কম একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল। বস্তুনিষ্ঠ ও তথ্যভিত্তিক সংবাদ প্রকাশের প্রতিশ্রুতি নিয়ে ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। উৎসর্গ করলাম আমার বাবার নামে, যাঁর স্নেহ-সান্নিধ্যের পরশ পরিবারের সুখ-দু:খ,হাসি-কান্না,ব্যথা-বেদনার মাঝেও আপার শান্তিতে পরিবার তথা সমাজে মাথা উচুঁ করে নিজের অস্তিত্বকে মেলে ধরতে পেরেছি।
জনপ্রিয় সংবাদ

হিলিতে নিষিদ্ধ পানীয় বিক্রির দায়ে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা

Advertisement

হিলি বন্দরে আমদানি কমলেও বেড়েছে রাজস্ব আদায়

প্রকাশিত সময় :- ০৬:১২:৪৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২৪

দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দরে ভারত থেকে পণ্য আমদানি কমলেও গত অর্থ বছরের তুলনায় রাজস্ব আদায় বৃদ্ধি পেয়েছে। এখন পর্যন্ত জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) রাজস্ব আদায়ের লক্ষমাত্র নির্ধারণ করেনি। তবে গত অর্থ বছরের প্রথম ছয় মাসের তুলনায় চলতি অর্থ বছরে ৪৮ কোটি টাকা বেশি রাজস্ব আদায় হয়েছে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ডলার সংকটের কারণে একদিকে যেমন আমদানি কমেছে অপরদিকে পেঁয়াজ ও জিরা আমদানিতে শুল্ক বৃদ্ধি ও অধিক শুল্কায়নের পণ্য আমদানি বেশী হওয়ায় রাজস্ব আদায় বেড়েছে। হিলি কাস্টমস এর তথ্য মতে,চলতি অর্থ বছরের প্রথম জুলাই মাসে ৩১ কোটি ৮০ লাখ, আগস্ট মাসে ৪৩ কোটি ৯২ লাখ, সেপ্টেম্বর মাসে ৩৮ কোটি ৩৯ লাখ, অক্টম্বর মাসে ৩৬ কোটি ৭২ লাখ, নভেম্বর মাসে ৫২ কোটি ৯৭ লাখ ও ডিসেম্বর মাসে ৫৭ কোটি ৪০ লাখ টাকা রাজস্ব আদায় হয়েছে। এবং ৬ লাখ ৭০ হাজার টন পণ্য আমদানি হয়েছে। এবং গত অর্থ বছরের প্রথম ছয় মাসে ৭ লাখ ৩ হাজার টন পন্য আমদানির বিপরীতে ২১৩ কোটি ১৬ লাখ টাকা রাজস্ব আদায় হয়েছে। অর্থৎ গত অর্থ বছরের তুলনায় ৩৩ হাজার টন পণ্য আমদানি কম হলেও ৪৮ কোটি টাকা রাজস্ব আদায় বেশী হয়েছে। হিলি স্থলবন্দরের আমদানি-রপ্তানিকারক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তক জানান, এলসি জটিলতার কারণে চাহিদা মতো পণ্য আমদানি করা যাচ্ছে না। সেই সাথে আগে যেখানে প্রতিকেজি জিরা আমদানিতে ৯৬ টাকা শুল্ক দিতে হতো এখন ২৩০ টাকা শুল্ক পরিশোধ করতে হয়। সেই সাথে ভারত সরকার পেঁয়াজের রপ্তানী মূল্য ৩২০ ডলার থেকে ৮শ ডালার নির্ধারণ করায় প্রতিকেজি পেঁয়াজ আমদানিতে ৪ টাকার পরিবর্তে ৯ টাকা হারে শুল্ক পরিশোধ করতে হচ্ছে। ফলে আমদানি কমলেও রাজস্ব আদায় বেড়েছে। হিলি স্থল শুল্ক স্টেশনের ডেপুটি কমিশনার বায়জিদ হোসেন জানান, কেউ যাতে উচ্চ শুল্কের পণ্য আমদানি করে কম শুল্কে আমদানিকৃত পণ্য ছাড়করণ করতে না পারে সে জন্য সঠিকভাবে পরীক্ষণ ও শুল্কয়ন করা হচ্ছে। রাজস্ব আদায় বৃদ্ধির লক্ষ্যে বন্দরকেন্দ্রিক যেকোন সমস্যা সমাধানের জন্য ব্যাবসায়ীদের সাথে নিয়মিত বৈঠক করা হচ্ছে।

নিউজবিজয়২৪/এফএইচএন