ঢাকা ০১:১৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঈদ মুবারক

হাতীবান্ধায় মামলার আসামী করা নিয়ে দ্বন্দ্বে সংঘর্ষ, আহত ১০

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় মানববন্ধন করাকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানসহ ১০ জন আহত হয়েছেন। পরে স্থানীয় থানা পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
মঙ্গলবার (১০ অক্টোবর) বেলা ১১ টার দিকে হাতীবান্ধা উপজেলার ভেলাগুড়ী ইউনিয়নের জাওরানী এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। এ সময় তিনটি মোটরসাইকেল ভাংচুর করা হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে।
জানা গেছে, ওই ইউনিয়নের জাওরানী এলাকার বক্সার আলীর সঙ্গে প্রতিবেশী আব্দুল জব্বারের দীর্ঘদিন ধরে জমি সংক্রান্ত বিরোধ চলছিল। ওই দ্বন্দ্বকে কেন্দ্র করে গত ২ অক্টোবর দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে বক্সার আলী গুরুতর আহত হয়ে ওইদিন রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হন। গত ৫ অক্টোবর রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বক্সার মারা যান।
পরে নিহত বক্সার আলীর ছেলে জহুরুল ইসলাম বাদী হয়ে মোন্নাফ হোসেন’কে প্রধান আসামি করে ১৩ জনের নাম উল্লেখ করে স্থানীয় থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।
নিহত বক্সার আলীর পরিবার সূত্রে জানা যায়, ওই মামলার প্রধান আসামি মোন্নাফ মিয়া ভেলাগুড়ী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম মন্ডলের সমর্থক হওয়ায় মামলার এজাহার থেকে না বাদ দিতে ভুক্তভোগীর পরিবার’কে হুমকি দিয়ে আসছে। এদিকে সোমবার ওই ইউপি চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে মোন্নাফ মিয়া’র বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলার অভিযোগ এনে প্রতিবাদে মানববন্ধন করে আব্দুল জব্বারের লোকজন।
মঙ্গলবার ওই মানববন্ধন করা’কে কেন্দ্র বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল মন্ডলের ছোট ভাই এটিএম সহিদুল ইসলাম মন্ডলের সঙ্গে সাবেক চেয়ারম্যান মহির উদ্দিনের ছেলে জাহাঙ্গীর আলমের কথা কাটাকাটি হয়। এর একপর্যায়ে দুপক্ষের লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। এরপর উভয় পক্ষের মধ্যে দফায় দফায় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া পাল্টা ঘটে। এতে গুরুতর আহত হন সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মহির উদ্দিনসহ অন্তত ১০ জন। এছাড়াও গুরুতর আহত হয়ে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি হন বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম মন্ডলের ভাই এটিএম সহিদুল ইসলাম।
এ বিষয় সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মহির উদ্দিনের ছোট ভাই মনছুর আলী বলেন, বর্তমান ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শফিকুল মন্ডলের ছোট ভাই এটিএম শহিদুল ইসলাম মন্ডল ও সাদিকুল ইসলাম মন্ডল আমার বড় ভাই সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মহির উদ্দিন ও তাঁর ছেলে জাহাঙ্গীর আলমের উপর হামলা চালায়। তাঁরা রংপুর হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। আমি এই ঘটনার সুষ্ঠ বিচার চাই।
ভেলাগুড়ী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম মন্ডল বলেন, ইউপি নির্বাচনে হেরে সাবেক চেয়ারম্যান মহির উদ্দিন এলাকায় শান্তি বিনষ্ট করছেন। একটি হত্যা মামলাকে কেন্দ্র করে আমার লোকজনের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা করেছে। ভেলাগুড়ীর পরিবেশ’কে অস্থিতিশীল করতে আমার লোকজনের ওপরসহ মোটরসাইকেল ভাংচুর চালান। এ ঘটনায় আমার দুই ভাইসহ ৭ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছে।
হাতীবান্ধা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহা আলম বলেন, বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে, ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পুরো ঘটনাটি তদন্ত চলছে, অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজবিজয়/এফএইচএন

👉 নিউজবিজয় ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন ✅

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার দিন।

NewsBijoy24.Com

নিউজবিজয়২৪.কম একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল। বস্তুনিষ্ঠ ও তথ্যভিত্তিক সংবাদ প্রকাশের প্রতিশ্রুতি নিয়ে ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। উৎসর্গ করলাম আমার বাবার নামে, যাঁর স্নেহ-সান্নিধ্যের পরশ পরিবারের সুখ-দু:খ,হাসি-কান্না,ব্যথা-বেদনার মাঝেও আপার শান্তিতে পরিবার তথা সমাজে মাথা উচুঁ করে নিজের অস্তিত্বকে মেলে ধরতে পেরেছি।

হাতীবান্ধায় মামলার আসামী করা নিয়ে দ্বন্দ্বে সংঘর্ষ, আহত ১০

প্রকাশিত সময় :- ০৬:০৪:৪৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১০ অক্টোবর ২০২৩

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় মানববন্ধন করাকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানসহ ১০ জন আহত হয়েছেন। পরে স্থানীয় থানা পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
মঙ্গলবার (১০ অক্টোবর) বেলা ১১ টার দিকে হাতীবান্ধা উপজেলার ভেলাগুড়ী ইউনিয়নের জাওরানী এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। এ সময় তিনটি মোটরসাইকেল ভাংচুর করা হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে।
জানা গেছে, ওই ইউনিয়নের জাওরানী এলাকার বক্সার আলীর সঙ্গে প্রতিবেশী আব্দুল জব্বারের দীর্ঘদিন ধরে জমি সংক্রান্ত বিরোধ চলছিল। ওই দ্বন্দ্বকে কেন্দ্র করে গত ২ অক্টোবর দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে বক্সার আলী গুরুতর আহত হয়ে ওইদিন রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হন। গত ৫ অক্টোবর রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বক্সার মারা যান।
পরে নিহত বক্সার আলীর ছেলে জহুরুল ইসলাম বাদী হয়ে মোন্নাফ হোসেন’কে প্রধান আসামি করে ১৩ জনের নাম উল্লেখ করে স্থানীয় থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।
নিহত বক্সার আলীর পরিবার সূত্রে জানা যায়, ওই মামলার প্রধান আসামি মোন্নাফ মিয়া ভেলাগুড়ী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম মন্ডলের সমর্থক হওয়ায় মামলার এজাহার থেকে না বাদ দিতে ভুক্তভোগীর পরিবার’কে হুমকি দিয়ে আসছে। এদিকে সোমবার ওই ইউপি চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে মোন্নাফ মিয়া’র বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলার অভিযোগ এনে প্রতিবাদে মানববন্ধন করে আব্দুল জব্বারের লোকজন।
মঙ্গলবার ওই মানববন্ধন করা’কে কেন্দ্র বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল মন্ডলের ছোট ভাই এটিএম সহিদুল ইসলাম মন্ডলের সঙ্গে সাবেক চেয়ারম্যান মহির উদ্দিনের ছেলে জাহাঙ্গীর আলমের কথা কাটাকাটি হয়। এর একপর্যায়ে দুপক্ষের লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। এরপর উভয় পক্ষের মধ্যে দফায় দফায় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া পাল্টা ঘটে। এতে গুরুতর আহত হন সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মহির উদ্দিনসহ অন্তত ১০ জন। এছাড়াও গুরুতর আহত হয়ে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি হন বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম মন্ডলের ভাই এটিএম সহিদুল ইসলাম।
এ বিষয় সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মহির উদ্দিনের ছোট ভাই মনছুর আলী বলেন, বর্তমান ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শফিকুল মন্ডলের ছোট ভাই এটিএম শহিদুল ইসলাম মন্ডল ও সাদিকুল ইসলাম মন্ডল আমার বড় ভাই সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মহির উদ্দিন ও তাঁর ছেলে জাহাঙ্গীর আলমের উপর হামলা চালায়। তাঁরা রংপুর হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। আমি এই ঘটনার সুষ্ঠ বিচার চাই।
ভেলাগুড়ী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম মন্ডল বলেন, ইউপি নির্বাচনে হেরে সাবেক চেয়ারম্যান মহির উদ্দিন এলাকায় শান্তি বিনষ্ট করছেন। একটি হত্যা মামলাকে কেন্দ্র করে আমার লোকজনের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা করেছে। ভেলাগুড়ীর পরিবেশ’কে অস্থিতিশীল করতে আমার লোকজনের ওপরসহ মোটরসাইকেল ভাংচুর চালান। এ ঘটনায় আমার দুই ভাইসহ ৭ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছে।
হাতীবান্ধা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহা আলম বলেন, বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে, ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পুরো ঘটনাটি তদন্ত চলছে, অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজবিজয়/এফএইচএন