ঢাকা ১২:০৯ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিশ্ব পরিবেশ দিবস

স্বামী ‘ফোন না ধরায়’ অভিমানে স্ত্রীর আত্মহত্যা

নীলফামারীর ডোমারে স্বামী ফোন না ধরায় অভিমানে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন আলিফা বেগম (২৫) নামে এক গৃহবধূ। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ডোমার উপজেলার পূর্ব চিকনমাটি জোড়পাখুড়ি কমিশনারপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। শুক্রবার সকালে ময়নাতদন্তের জন্য জেলা হাসপাতালে লাশ পাঠানো হয়েছে। আলিফা বেগম চিকনমাটি জোড়পাখুড়ি কমিশনারপাড়ার মাহতাব হোসেনের মেয়ে ও রামগঞ্জ এলাকার জনি ইসলামের স্ত্রী। তাদের তিন বছর বয়সি এক ছেলে রয়েছে। ডোমার পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আনারুল ইসলাম আত্মহত্যার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
কাউন্সিলর আনারুল ইসলাম আরও জানান, আলিফা বেগম আগে থেকেই অসুস্থ ছিলেন এবং তার ভাই আব্দুস সালাম তার চিকিৎসা করানোর জন্য ঢাকা থেকে ডোমারে নিয়ে আসেন। আলিফা সকাল থেকে তার স্বামীকে কয়েকবার ফোন দিলে স্বামী ফোন রিসিভ না করাতে স্বামীর ওপর অভিমান করেন আলিফা বেগম। এরই একপর্যায়ে সবার অগোচরে সন্ধ্যার দিকে ঘরের আড়ার সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেন। ধারণা করা হচ্ছে, স্বামীর ওপর অভিমান করে তিনি আত্মহত্যা করেছেন। ডোমার থানার ওসি সাইফুল ইসলাম আত্মহত্যার ব্যাপারটি নিশ্চিত করে জানান, রাতে লাশ উদ্ধার করে থানায় আনা হয়েছে এবং মেয়ের পরিবার ডোমার থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা করেছেন।

নিউজ বিজয়/নজরুল

👉 নিউজবিজয় ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন ✅

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার দিন।

NewsBijoy24.Com

নিউজবিজয়২৪.কম একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল। বস্তুনিষ্ঠ ও তথ্যভিত্তিক সংবাদ প্রকাশের প্রতিশ্রুতি নিয়ে ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। উৎসর্গ করলাম আমার বাবার নামে, যাঁর স্নেহ-সান্নিধ্যের পরশ পরিবারের সুখ-দু:খ,হাসি-কান্না,ব্যথা-বেদনার মাঝেও আপার শান্তিতে পরিবার তথা সমাজে মাথা উচুঁ করে নিজের অস্তিত্বকে মেলে ধরতে পেরেছি।

স্বামী ‘ফোন না ধরায়’ অভিমানে স্ত্রীর আত্মহত্যা

প্রকাশিত সময় :- ০১:০৫:৫০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২০ মে ২০২২

নীলফামারীর ডোমারে স্বামী ফোন না ধরায় অভিমানে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন আলিফা বেগম (২৫) নামে এক গৃহবধূ। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ডোমার উপজেলার পূর্ব চিকনমাটি জোড়পাখুড়ি কমিশনারপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। শুক্রবার সকালে ময়নাতদন্তের জন্য জেলা হাসপাতালে লাশ পাঠানো হয়েছে। আলিফা বেগম চিকনমাটি জোড়পাখুড়ি কমিশনারপাড়ার মাহতাব হোসেনের মেয়ে ও রামগঞ্জ এলাকার জনি ইসলামের স্ত্রী। তাদের তিন বছর বয়সি এক ছেলে রয়েছে। ডোমার পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আনারুল ইসলাম আত্মহত্যার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
কাউন্সিলর আনারুল ইসলাম আরও জানান, আলিফা বেগম আগে থেকেই অসুস্থ ছিলেন এবং তার ভাই আব্দুস সালাম তার চিকিৎসা করানোর জন্য ঢাকা থেকে ডোমারে নিয়ে আসেন। আলিফা সকাল থেকে তার স্বামীকে কয়েকবার ফোন দিলে স্বামী ফোন রিসিভ না করাতে স্বামীর ওপর অভিমান করেন আলিফা বেগম। এরই একপর্যায়ে সবার অগোচরে সন্ধ্যার দিকে ঘরের আড়ার সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেন। ধারণা করা হচ্ছে, স্বামীর ওপর অভিমান করে তিনি আত্মহত্যা করেছেন। ডোমার থানার ওসি সাইফুল ইসলাম আত্মহত্যার ব্যাপারটি নিশ্চিত করে জানান, রাতে লাশ উদ্ধার করে থানায় আনা হয়েছে এবং মেয়ের পরিবার ডোমার থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা করেছেন।

নিউজ বিজয়/নজরুল