ঢাকা ০৬:৩৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

লিবিয়ায় ঘূর্ণিঝড়-বন্যায় ২ হাজার মানুষের মৃত্যুর শঙ্কা

শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ও ভয়াবহ বন্যায় লিবিয়ার পূর্বাঞ্চলে কয়েক হাজার মানুষ নিহত হয়েছেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। ঝড়ের আঘাতে দেশটির উপকূলীয় শহরগুলোর শতশত বাড়ি উড়ে গেছে। এছাড়া দুটি পুরোনো বাঁধ ভেঙে গিয়ে দারনা শহরে ভয়াবহ বন্যা দেখা দিয়েছে। আর এই বন্যায় দারনা শহর পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে বলে মঙ্গলবার (১২ সেপ্টেম্বর) এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা।

গতকাল সোমবার পূর্ব লিবিয়াভিত্তিক স্বঘোষিত সরকারের প্রধানমন্ত্রী ওসামা হামাদ দেশটির গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, ঘূর্ণিঝড় ও ভয়াবহ বন্যায় অন্তত কয়েক হাজার মানুষ নিখোঁজ রয়েছেন। তবে কোথা থেকে তিনি এমন পরিসংখ্যান পেয়েছেন তা উল্লেখ করেননি।

লিবিয়ার সশস্ত্র বাহিনীর পূর্বাঞ্চলের মুখপাত্র আহমেদ এল-মোসমারি এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন, শুধুমাত্র দারনাতেই মৃতের সংখ্যা ২ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। তিনি আরও জানিয়েছেন, সেখানে ৫ থেকে ৬ হাজার মানুষ নিখোঁজ আছেন। মূলত সেখানে পুরোনো দুটি বাঁধ ভেঙে গিয়ে এমন বিপর্যয়কর পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে বলে দাবি করেছেন তিনি।

লিবিয়ার বেনগাজি থেকে দাতব্য সংস্থা রেড ক্রিসেন্টের আঞ্চলিক প্রধান কাঈস ফাখেরি জানিয়েছেন, ঘূর্ণিঝড় ড্যানিয়েলের কারণে দারনায় ১৫০ জন মানুষ নিহত হওয়ার ব্যাপারে নিশ্চিত হয়েছেন তারা। সেখানে পানি ১০ ফুট পর্যন্ত বৃদ্ধি পেয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

আল জাজিরার সাংবাদিক মালিক ত্রাইনা লিবিয়ার রাজধানী ত্রিপোলি থেকে বলেছেন, ‘দারনা শহরটি পুরোপুরি পাহাড় ঘেরা, আর সেখানে এই বাঁধগুলো ধসে পড়েছে। কয়েকজন বিশেষজ্ঞ বলছেন, শহরটিতে ৩০ মিলিয়ন কিউবিক মিটার পানি গড়িয়ে গেছে। আর আমরা দেখছি পুরো শহর ধ্বংস হয়ে গেছে।’

লিবিয়া-যুক্তরাষ্ট্র ন্যাশনাল কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট হানি সেনিব আল জাজিরাকে বলেছেন, ‘সেখানে ইন্টারনেট সংযোগ বিচ্ছন্ন হয়ে গেছে, বিদ্যুৎ নেই। দারনায় যে ভয়াবহ বিপর্যয় হয়েছে, প্রতি মিনিটে সেটি বাড়ছে। মৃতের সংখ্যা বাড়বে… কমপক্ষে ৫ হাজার মানুষ।’ সূত্র: আল জাজিরা

নিউজবিজয়/এফএইচএন

👉 নিউজবিজয় ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন ✅

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার দিন।

NewsBijoy24.Com

নিউজবিজয়২৪.কম একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল। বস্তুনিষ্ঠ ও তথ্যভিত্তিক সংবাদ প্রকাশের প্রতিশ্রুতি নিয়ে ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। উৎসর্গ করলাম আমার বাবার নামে, যাঁর স্নেহ-সান্নিধ্যের পরশ পরিবারের সুখ-দু:খ,হাসি-কান্না,ব্যথা-বেদনার মাঝেও আপার শান্তিতে পরিবার তথা সমাজে মাথা উচুঁ করে নিজের অস্তিত্বকে মেলে ধরতে পেরেছি।

ধারণা ছিল একটা আঘাত আসবে: প্রধানমন্ত্রী

লিবিয়ায় ঘূর্ণিঝড়-বন্যায় ২ হাজার মানুষের মৃত্যুর শঙ্কা

প্রকাশিত সময় :- ০৯:৩২:০৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১২ সেপ্টেম্বর ২০২৩

শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ও ভয়াবহ বন্যায় লিবিয়ার পূর্বাঞ্চলে কয়েক হাজার মানুষ নিহত হয়েছেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। ঝড়ের আঘাতে দেশটির উপকূলীয় শহরগুলোর শতশত বাড়ি উড়ে গেছে। এছাড়া দুটি পুরোনো বাঁধ ভেঙে গিয়ে দারনা শহরে ভয়াবহ বন্যা দেখা দিয়েছে। আর এই বন্যায় দারনা শহর পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে বলে মঙ্গলবার (১২ সেপ্টেম্বর) এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা।

গতকাল সোমবার পূর্ব লিবিয়াভিত্তিক স্বঘোষিত সরকারের প্রধানমন্ত্রী ওসামা হামাদ দেশটির গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, ঘূর্ণিঝড় ও ভয়াবহ বন্যায় অন্তত কয়েক হাজার মানুষ নিখোঁজ রয়েছেন। তবে কোথা থেকে তিনি এমন পরিসংখ্যান পেয়েছেন তা উল্লেখ করেননি।

লিবিয়ার সশস্ত্র বাহিনীর পূর্বাঞ্চলের মুখপাত্র আহমেদ এল-মোসমারি এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন, শুধুমাত্র দারনাতেই মৃতের সংখ্যা ২ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। তিনি আরও জানিয়েছেন, সেখানে ৫ থেকে ৬ হাজার মানুষ নিখোঁজ আছেন। মূলত সেখানে পুরোনো দুটি বাঁধ ভেঙে গিয়ে এমন বিপর্যয়কর পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে বলে দাবি করেছেন তিনি।

লিবিয়ার বেনগাজি থেকে দাতব্য সংস্থা রেড ক্রিসেন্টের আঞ্চলিক প্রধান কাঈস ফাখেরি জানিয়েছেন, ঘূর্ণিঝড় ড্যানিয়েলের কারণে দারনায় ১৫০ জন মানুষ নিহত হওয়ার ব্যাপারে নিশ্চিত হয়েছেন তারা। সেখানে পানি ১০ ফুট পর্যন্ত বৃদ্ধি পেয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

আল জাজিরার সাংবাদিক মালিক ত্রাইনা লিবিয়ার রাজধানী ত্রিপোলি থেকে বলেছেন, ‘দারনা শহরটি পুরোপুরি পাহাড় ঘেরা, আর সেখানে এই বাঁধগুলো ধসে পড়েছে। কয়েকজন বিশেষজ্ঞ বলছেন, শহরটিতে ৩০ মিলিয়ন কিউবিক মিটার পানি গড়িয়ে গেছে। আর আমরা দেখছি পুরো শহর ধ্বংস হয়ে গেছে।’

লিবিয়া-যুক্তরাষ্ট্র ন্যাশনাল কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট হানি সেনিব আল জাজিরাকে বলেছেন, ‘সেখানে ইন্টারনেট সংযোগ বিচ্ছন্ন হয়ে গেছে, বিদ্যুৎ নেই। দারনায় যে ভয়াবহ বিপর্যয় হয়েছে, প্রতি মিনিটে সেটি বাড়ছে। মৃতের সংখ্যা বাড়বে… কমপক্ষে ৫ হাজার মানুষ।’ সূত্র: আল জাজিরা

নিউজবিজয়/এফএইচএন