ঢাকা ০২:১৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রপ্তানির অপেক্ষায় হিলি সীমান্তে পেঁয়াজবোঝাই ৩০ ট্রাক

  • নিউজ বিজয় ডেস্ক :-
  • প্রকাশিত সময় :- ০৮:৩৮:০২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ মে ২০২৩
  • ৪২৭ পড়া হয়েছে। নিউজবিজয় ২৪.কম-১৫ ডিসেম্বরে ৯ বছরে পর্দাপন

সম্প্রতি দেশিয় পেঁয়াজের সরবরাহ কমের অজুহাতে ঊর্ধ্বমুখি হয়ে উঠেছে পেঁয়াজের দাম। এমন অবস্থায় পেঁয়াজের দাম নিয়ন্ত্রণে আনতে ও সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রীগণ ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানির অনুমতির কথা বলছেন। এতে করে যে কোন সময়ে দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দরসহ অন্যান্য বন্দর দিয়ে আবারও পেঁয়াজ আমাদানি শুরু হতে পারে। এমন কথা ভেবে ভারত অভ্যন্তরে ৩০টি পেয়াজবোঝাই ট্রাক দাড়িয়ে রয়েছে বাংলাদেশে রপ্তানির অপেক্ষায়।

ভারতের হিলি এক্সপোটার্স এন্ড ক্লিয়ারিং এজেন্ট আ্যাসোসিয়েশনের সদস্য খোকন সরকার বলেন, বাংলাদেশে পেঁয়াজের বাজার বাড়তি হয়ে গেছে যার কারণে কয়েকদিন ধরেই পেঁয়াজ আমদানির অনুমতির কথা বলাবলি করছে। আগামী দুয়েক দিনের মধ্যে পেঁয়াজের আইপি হয়ে যাবে এমন কথা শোনা যাচ্ছে।

যার পরিপেক্ষিতে ভারতীয় রপ্তানিকারকরা বাংলাদেশে পেঁয়াজ রপ্তানির জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পূর্ণ করে রেখেছেন। এখন শুধুমাত্র বাংলাদেশে পেঁয়াজের ইমপোর্ট পারমিট (আইপি) দিলেই রপ্তানি শুরু হয়ে যাবে। ইতোমধ্যেই আমাদের পার্কিংয়ে পেঁয়াজ বোঝাই বেশ কিছু ট্রাক চলে আসছে এগুলো রপ্তানির অপেক্ষায় পণ্য নিয়ে দাঁড়িয়ে রয়েছে। যেদিন আইপি হবে তারপরেই এসব পেঁয়াজ বাংলাদেশে রপ্তানি হবে।

হিলি স্থলবন্দরের পেঁয়াজ আমদানিকারক তোজাম্মেল হক বলেন, দেশিয়কৃষকের উৎপাদিত পেঁয়াজের ন্যায্যমুল্য নিশ্চিত ও পেঁয়াজ চাষে কৃষকদের উদ্ভুদ্ধ করতে গত ১৫ই মার্চ থেকে পেঁয়াজ আমদানির
অনুমতি দেয়া বন্ধ করে দেয় সরকার। এতে করে ১৬ই মার্চ থেকে হিলি স্থলবন্দরসহ দেশের সবগুলো বন্দর দিয়ে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ রয়েছে।

সম্প্রতি দেশে দাম বেড়ে পেঁয়াজের বাজার অস্থিতিশীল হয়ে উঠে। এমন অবস্থায় দেশের বাজারে পেঁয়াজের সররবাহ স্বাভাবিক রাখতে ও দাম নিয়ন্ত্রনে রাখতে আমরা ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানির অনুমতি দেয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরে অনুরোধ জানিয়ে আসছিলাম। সম্প্রতি বানিজ্যমন্ত্রী ও কৃষিমন্ত্রী বাজার পরিস্থিতি বিবেচনা করে পেঁয়াজ আমদানির অনুমতির কথা বলেছেন। ইতোমধ্যেই বন্দরের কয়েকজন আমদানিকারক কয়েক হাজার টন পেঁয়াজ আমদানির অনুমতি চেয়ে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে আবেদন করেছেন। সেই সাথে পেঁয়াজ আমদানির জন্য অন্যান্য যেসব প্রক্রিয়াগুলো সেগুলোর প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছেন।

তিনি আরও বলেন, আমদানির অনুমতি দিলেই দ্রুত ব্যাংক থেকে পেঁয়াজের এলসি খোলা সম্পূর্ণ করে ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি করা হবে। এতে করে দেশের বাজারে পেঁয়াজের দাম নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

বর্তমানে ভারতের বাজারে যে পেঁয়াজের দাম রয়েছে তাতে করে পরিবহন খরচসহ অন্যান্য খরচ মিলিয়ে ২৫ থেকে ৩০টাকার মধ্যে দাম থাকতে পারে।

তিনি আরও বলেন, দুয়েকদিনের মধ্যে বাংলাদেশে পেঁয়াজ আমদানির অনুমতি পত্র (আইপি) দিতে পারে এমন খবরের প্রেক্ষিতে ভারতীয় রপ্তানিকারকরা তার প্রস্তুতি হিসেবে ইতোমধ্যেই ভারতের বাজার থেকে পেঁয়াজ ক্রয় করে লোডিং কমপ্লিট করে ভারতের অভ্যন্তরে পার্কিংয়ে ট্রাক দাঁড় করিয়ে রেখেছেন। আমি যতটুকু জানতে পেরেছি এ পর্যন্ত ৩০টির মত পেঁয়াজ বোঝাই ট্রাক ভারতের অভ্যন্তরে পার্কিংয়ে দাড়িয়েছিল। সবমিলিয়ে প্রায় ১ হাজার টন পেঁয়াজ বাংলাদেশে রপ্তানির অপেক্ষায় ভারত অভ্যন্তরে দাঁড়িয়ে রয়েছে। কিন্তু গতকাল পেঁয়াজ আমদানির অনুমতি না হওয়ায় ও আরও দুই চারদিন বাজার পরিস্থিতি দেখে আমদানির অনুমতি দেওয়া হবে।

হিলি স্থলবন্দর উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্রের উপ-সহকারী কর্মকর্তা ইউসুফ আলী বলেন, সম্প্রতি বানিজ্যমন্ত্রী ও কৃষিমন্ত্রী পেঁয়াজ আমদানির অনুমতির বিষয়ে কথা বলেছেন। তবে এখন পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট দপ্তর থেকে পেঁয়াজ আমদানির কোন ধরনের অনুমতি পত্র বা আইপি ইস্যু করা হয়নি বা ওয়েব সাইটে কোন ধরনের তথ্য আপডেট করা হয়নি। পেঁয়াজ আমদানির অনুমতি দেয়া মাত্র সেই তথ্য আমাদের
সার্ভারে দেখা যাবে। এর পরেই বন্দর দিয়ে ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি শুরু হতে পারে।

নিউজবিজয়২৪/এফএইচএন

👉 নিউজবিজয় ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন ✅

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার দিন।

NewsBijoy24.Com

নিউজবিজয়২৪.কম একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল। বস্তুনিষ্ঠ ও তথ্যভিত্তিক সংবাদ প্রকাশের প্রতিশ্রুতি নিয়ে ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। উৎসর্গ করলাম আমার বাবার নামে, যাঁর স্নেহ-সান্নিধ্যের পরশ পরিবারের সুখ-দু:খ,হাসি-কান্না,ব্যথা-বেদনার মাঝেও আপার শান্তিতে পরিবার তথা সমাজে মাথা উচুঁ করে নিজের অস্তিত্বকে মেলে ধরতে পেরেছি।

রপ্তানির অপেক্ষায় হিলি সীমান্তে পেঁয়াজবোঝাই ৩০ ট্রাক

প্রকাশিত সময় :- ০৮:৩৮:০২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ মে ২০২৩

সম্প্রতি দেশিয় পেঁয়াজের সরবরাহ কমের অজুহাতে ঊর্ধ্বমুখি হয়ে উঠেছে পেঁয়াজের দাম। এমন অবস্থায় পেঁয়াজের দাম নিয়ন্ত্রণে আনতে ও সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রীগণ ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানির অনুমতির কথা বলছেন। এতে করে যে কোন সময়ে দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দরসহ অন্যান্য বন্দর দিয়ে আবারও পেঁয়াজ আমাদানি শুরু হতে পারে। এমন কথা ভেবে ভারত অভ্যন্তরে ৩০টি পেয়াজবোঝাই ট্রাক দাড়িয়ে রয়েছে বাংলাদেশে রপ্তানির অপেক্ষায়।

ভারতের হিলি এক্সপোটার্স এন্ড ক্লিয়ারিং এজেন্ট আ্যাসোসিয়েশনের সদস্য খোকন সরকার বলেন, বাংলাদেশে পেঁয়াজের বাজার বাড়তি হয়ে গেছে যার কারণে কয়েকদিন ধরেই পেঁয়াজ আমদানির অনুমতির কথা বলাবলি করছে। আগামী দুয়েক দিনের মধ্যে পেঁয়াজের আইপি হয়ে যাবে এমন কথা শোনা যাচ্ছে।

যার পরিপেক্ষিতে ভারতীয় রপ্তানিকারকরা বাংলাদেশে পেঁয়াজ রপ্তানির জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পূর্ণ করে রেখেছেন। এখন শুধুমাত্র বাংলাদেশে পেঁয়াজের ইমপোর্ট পারমিট (আইপি) দিলেই রপ্তানি শুরু হয়ে যাবে। ইতোমধ্যেই আমাদের পার্কিংয়ে পেঁয়াজ বোঝাই বেশ কিছু ট্রাক চলে আসছে এগুলো রপ্তানির অপেক্ষায় পণ্য নিয়ে দাঁড়িয়ে রয়েছে। যেদিন আইপি হবে তারপরেই এসব পেঁয়াজ বাংলাদেশে রপ্তানি হবে।

হিলি স্থলবন্দরের পেঁয়াজ আমদানিকারক তোজাম্মেল হক বলেন, দেশিয়কৃষকের উৎপাদিত পেঁয়াজের ন্যায্যমুল্য নিশ্চিত ও পেঁয়াজ চাষে কৃষকদের উদ্ভুদ্ধ করতে গত ১৫ই মার্চ থেকে পেঁয়াজ আমদানির
অনুমতি দেয়া বন্ধ করে দেয় সরকার। এতে করে ১৬ই মার্চ থেকে হিলি স্থলবন্দরসহ দেশের সবগুলো বন্দর দিয়ে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ রয়েছে।

সম্প্রতি দেশে দাম বেড়ে পেঁয়াজের বাজার অস্থিতিশীল হয়ে উঠে। এমন অবস্থায় দেশের বাজারে পেঁয়াজের সররবাহ স্বাভাবিক রাখতে ও দাম নিয়ন্ত্রনে রাখতে আমরা ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানির অনুমতি দেয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরে অনুরোধ জানিয়ে আসছিলাম। সম্প্রতি বানিজ্যমন্ত্রী ও কৃষিমন্ত্রী বাজার পরিস্থিতি বিবেচনা করে পেঁয়াজ আমদানির অনুমতির কথা বলেছেন। ইতোমধ্যেই বন্দরের কয়েকজন আমদানিকারক কয়েক হাজার টন পেঁয়াজ আমদানির অনুমতি চেয়ে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে আবেদন করেছেন। সেই সাথে পেঁয়াজ আমদানির জন্য অন্যান্য যেসব প্রক্রিয়াগুলো সেগুলোর প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছেন।

তিনি আরও বলেন, আমদানির অনুমতি দিলেই দ্রুত ব্যাংক থেকে পেঁয়াজের এলসি খোলা সম্পূর্ণ করে ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি করা হবে। এতে করে দেশের বাজারে পেঁয়াজের দাম নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

বর্তমানে ভারতের বাজারে যে পেঁয়াজের দাম রয়েছে তাতে করে পরিবহন খরচসহ অন্যান্য খরচ মিলিয়ে ২৫ থেকে ৩০টাকার মধ্যে দাম থাকতে পারে।

তিনি আরও বলেন, দুয়েকদিনের মধ্যে বাংলাদেশে পেঁয়াজ আমদানির অনুমতি পত্র (আইপি) দিতে পারে এমন খবরের প্রেক্ষিতে ভারতীয় রপ্তানিকারকরা তার প্রস্তুতি হিসেবে ইতোমধ্যেই ভারতের বাজার থেকে পেঁয়াজ ক্রয় করে লোডিং কমপ্লিট করে ভারতের অভ্যন্তরে পার্কিংয়ে ট্রাক দাঁড় করিয়ে রেখেছেন। আমি যতটুকু জানতে পেরেছি এ পর্যন্ত ৩০টির মত পেঁয়াজ বোঝাই ট্রাক ভারতের অভ্যন্তরে পার্কিংয়ে দাড়িয়েছিল। সবমিলিয়ে প্রায় ১ হাজার টন পেঁয়াজ বাংলাদেশে রপ্তানির অপেক্ষায় ভারত অভ্যন্তরে দাঁড়িয়ে রয়েছে। কিন্তু গতকাল পেঁয়াজ আমদানির অনুমতি না হওয়ায় ও আরও দুই চারদিন বাজার পরিস্থিতি দেখে আমদানির অনুমতি দেওয়া হবে।

হিলি স্থলবন্দর উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্রের উপ-সহকারী কর্মকর্তা ইউসুফ আলী বলেন, সম্প্রতি বানিজ্যমন্ত্রী ও কৃষিমন্ত্রী পেঁয়াজ আমদানির অনুমতির বিষয়ে কথা বলেছেন। তবে এখন পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট দপ্তর থেকে পেঁয়াজ আমদানির কোন ধরনের অনুমতি পত্র বা আইপি ইস্যু করা হয়নি বা ওয়েব সাইটে কোন ধরনের তথ্য আপডেট করা হয়নি। পেঁয়াজ আমদানির অনুমতি দেয়া মাত্র সেই তথ্য আমাদের
সার্ভারে দেখা যাবে। এর পরেই বন্দর দিয়ে ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি শুরু হতে পারে।

নিউজবিজয়২৪/এফএইচএন