ঢাকা ০৬:২৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০২৪, ২৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জে ভিজিডি’র চাউল আত্মসাত ইউপি চেয়ারম্যান শাহীন চৌধুরীর বিরুদ্ধে তদন্ত সম্পন্ন

রোববার দুপুরে দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার মোহনপুর ইউনিয়নের স্থায়ী বাসিন্দা গোলাম রব্বানী’র স্ত্রী শিউলি আক্তার সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান শাহিনুর রহমান চৌধুরী শাহীনের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করলে বীরগঞ্জ উপজেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের কর্মকর্তা নিবেদিতা দাস ভিজিডি কার্ডধারী শিউলি আক্তারকে বীরগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কার্যালয়ে এ বিষয়ে জিজ্ঞেস করলে তিনি সব ঘটনা খুলে বলেন। অভিযোগকারী আরো বলেন প্রতি মাসে মাষ্টার রোলে ভূয়া স্বাক্ষরে চাউল উত্তোলন করে আত্মসাত করতে থাকেন।

এক পর্যায় ঘটনাটি জানাজানি হলে শিউলি তার স্বামীকে নিয়ে ঘটনা জানতে চেয়ারম্যান শাহিন চৌধুরীর স্মরনাপন্ন হন।অভিযোগকারী বলেন চেয়ারম্যান সাহেব পাঁচ মাস যাবত ভিজিডি’র চাল আত্মসাতের কথা নির্দিধায় স্বীকার করে বলেন, যাও কি করার আছে কর! আমি বিরোধী দলের চেয়ারম্যান, বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার আমাদের উপর মামলা হামলা ও জুলুম নির্যাতন চালাচ্ছে।
তাই এসব চাউল বিক্রি করে আমাকে দলীয় লোকজন সামলাতে এবং মামলার খরচ চালাতে হয়।
তাদের সাথে চেয়ারম্যান দুর্ব্যবহার করাসহ তার লালিত গুন্ডা বাহিনী দ্বারা তার স্বামীকে ডেকে নিয়ে কোন একটি দোকান ঘরের কক্ষে আটক করে শারীরিক নির্যাতন করা এবং হুমকি ধামকি দিয়েছে বলেও তারা জানান।
অভিযোগের সত্যতা যাচাই করতে আজ তদন্তকারী উপজেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের কর্মকর্তা নিবেদিতা দাস অভিযোগকারী শিউলি আক্তার কে তার দপ্তরে মুঠোফোনে ডেকে এনে শুনানী করার কথা বললেও পরবর্তীতে উপজেলা চেয়ারম্যানের অনুপস্থিতিতে তার কার্যলয়ে শুনানী করা হয়। সে সময় উপস্থিতি ছিলেন উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আয়শা আক্তার বৃষ্টি, আওয়ামী লীগ নেতা নুর আমিন, গোলাম রব্বানীসহ কয়েকজন এলাকাবাসী, সাংবাদিক মোশাররফ হোসেন, সিদ্দিক হোসেন, নাজমুল ইসলা মিলন, আব্দুল জলিল, ফেরদৌস ওয়াহিদ সবুজ এবং পুলিশের গোয়েন্দা শাখার সদস্যবৃন্দ।
তদন্তকারী অফিসার শুনানীর সময় চেয়ারম্যান শাহিন চৌধুরীর সাথে মুঠোফোনে কথা বলেন।
অতঃপর অভিযোগকারী কে সোজা চেয়ারম্যানের সাথে দেখা করে চলতি মাসসহ আত্মসাত করা বিগত পাঁচ মাসের চাল অথবা সম পরিমান চালের মুল্য একসাথে বুঝে নেয়ার অনুরোধ করেন।
অভিযুক্ত চেয়রাম্যানের সাথে একাধিকবার মুঠোফোনে যোগাযোগ করে পাওয়া যায় নি।সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তদন্তকারী অফিসার বলেন চেয়ারম্যান সাহেব এটি নিত্যান্তই অপরাধ করেছেন, আগামী উপজেলার সমন্বয় সভায় ঘটনাটি উত্থাপন করা হবে এবং কমিটি এই অপরাধের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন করবেন।
এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত অভিযোগকারী আত্মসাত হওয়া চাউলের জন্য মোহনপুর ইউনিয়ন পরিষদে চেয়ারম্যানের দপ্তরে অপেক্ষা করছেন বলে জানা গেছে।
নিউজবিজয়২৪/এফএইচএন

👉 নিউজবিজয় ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন ✅

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার দিন।

NewsBijoy24.Com

নিউজবিজয়২৪.কম একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল। বস্তুনিষ্ঠ ও তথ্যভিত্তিক সংবাদ প্রকাশের প্রতিশ্রুতি নিয়ে ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। উৎসর্গ করলাম আমার বাবার নামে, যাঁর স্নেহ-সান্নিধ্যের পরশ পরিবারের সুখ-দু:খ,হাসি-কান্না,ব্যথা-বেদনার মাঝেও আপার শান্তিতে পরিবার তথা সমাজে মাথা উচুঁ করে নিজের অস্তিত্বকে মেলে ধরতে পেরেছি।

নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর প্রশ্নই নেই : বাইডেন

বীরগঞ্জে ভিজিডি’র চাউল আত্মসাত ইউপি চেয়ারম্যান শাহীন চৌধুরীর বিরুদ্ধে তদন্ত সম্পন্ন

প্রকাশিত সময় :- ০৬:৪০:১০ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুলাই ২০২৩

রোববার দুপুরে দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার মোহনপুর ইউনিয়নের স্থায়ী বাসিন্দা গোলাম রব্বানী’র স্ত্রী শিউলি আক্তার সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান শাহিনুর রহমান চৌধুরী শাহীনের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করলে বীরগঞ্জ উপজেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের কর্মকর্তা নিবেদিতা দাস ভিজিডি কার্ডধারী শিউলি আক্তারকে বীরগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কার্যালয়ে এ বিষয়ে জিজ্ঞেস করলে তিনি সব ঘটনা খুলে বলেন। অভিযোগকারী আরো বলেন প্রতি মাসে মাষ্টার রোলে ভূয়া স্বাক্ষরে চাউল উত্তোলন করে আত্মসাত করতে থাকেন।

এক পর্যায় ঘটনাটি জানাজানি হলে শিউলি তার স্বামীকে নিয়ে ঘটনা জানতে চেয়ারম্যান শাহিন চৌধুরীর স্মরনাপন্ন হন।অভিযোগকারী বলেন চেয়ারম্যান সাহেব পাঁচ মাস যাবত ভিজিডি’র চাল আত্মসাতের কথা নির্দিধায় স্বীকার করে বলেন, যাও কি করার আছে কর! আমি বিরোধী দলের চেয়ারম্যান, বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার আমাদের উপর মামলা হামলা ও জুলুম নির্যাতন চালাচ্ছে।
তাই এসব চাউল বিক্রি করে আমাকে দলীয় লোকজন সামলাতে এবং মামলার খরচ চালাতে হয়।
তাদের সাথে চেয়ারম্যান দুর্ব্যবহার করাসহ তার লালিত গুন্ডা বাহিনী দ্বারা তার স্বামীকে ডেকে নিয়ে কোন একটি দোকান ঘরের কক্ষে আটক করে শারীরিক নির্যাতন করা এবং হুমকি ধামকি দিয়েছে বলেও তারা জানান।
অভিযোগের সত্যতা যাচাই করতে আজ তদন্তকারী উপজেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের কর্মকর্তা নিবেদিতা দাস অভিযোগকারী শিউলি আক্তার কে তার দপ্তরে মুঠোফোনে ডেকে এনে শুনানী করার কথা বললেও পরবর্তীতে উপজেলা চেয়ারম্যানের অনুপস্থিতিতে তার কার্যলয়ে শুনানী করা হয়। সে সময় উপস্থিতি ছিলেন উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আয়শা আক্তার বৃষ্টি, আওয়ামী লীগ নেতা নুর আমিন, গোলাম রব্বানীসহ কয়েকজন এলাকাবাসী, সাংবাদিক মোশাররফ হোসেন, সিদ্দিক হোসেন, নাজমুল ইসলা মিলন, আব্দুল জলিল, ফেরদৌস ওয়াহিদ সবুজ এবং পুলিশের গোয়েন্দা শাখার সদস্যবৃন্দ।
তদন্তকারী অফিসার শুনানীর সময় চেয়ারম্যান শাহিন চৌধুরীর সাথে মুঠোফোনে কথা বলেন।
অতঃপর অভিযোগকারী কে সোজা চেয়ারম্যানের সাথে দেখা করে চলতি মাসসহ আত্মসাত করা বিগত পাঁচ মাসের চাল অথবা সম পরিমান চালের মুল্য একসাথে বুঝে নেয়ার অনুরোধ করেন।
অভিযুক্ত চেয়রাম্যানের সাথে একাধিকবার মুঠোফোনে যোগাযোগ করে পাওয়া যায় নি।সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তদন্তকারী অফিসার বলেন চেয়ারম্যান সাহেব এটি নিত্যান্তই অপরাধ করেছেন, আগামী উপজেলার সমন্বয় সভায় ঘটনাটি উত্থাপন করা হবে এবং কমিটি এই অপরাধের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন করবেন।
এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত অভিযোগকারী আত্মসাত হওয়া চাউলের জন্য মোহনপুর ইউনিয়ন পরিষদে চেয়ারম্যানের দপ্তরে অপেক্ষা করছেন বলে জানা গেছে।
নিউজবিজয়২৪/এফএইচএন