ঢাকা ০৯:২৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ঈদ মোবারক

পাহাড়ি অঞ্চলে কুল চাষের সমাহার

পাহাড়ি জেলা খাগড়াছড়ির মহালছড়ি উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় দেখা যায় কুল চাষের সমাহার।
এবং কুল বাগনের মাধ্যমে ধুর হচ্ছে যুবকের বেকারত্ব।

মহালছড়ির,মাইসছড়ি ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডে পশ্চিম কায়াংঘাট এলাকায় বসবাসরত। বাবু দিবাকর চাকমার কুল বাগান ঘুরে জানা যায়।
তিনি ৪০শতক জমিতে মোট ২২০ টি কুল গাছ লাগিয়েছে।তার মোট খরচ ৪০ হাজার টাকা,ফলন ভালো হওয়াতে তিনি বলেন প্রতিটি গাছ থেকে ১০-১৫ কেজি কুল পাওয়া যাবে।
যদি বাজার দর ভালো হয় তাহলে তিনি লাভবান হবেন।

উপজেলা কৃষি কর্মকার্তা বলেন,পাহাড়ি জমি হওয়া সত্তেও সমতল ও হালকা উঁচু জমি গুলো তে কুলের ভালো ফলন দেখা যাচ্ছে।
তিনি আরো বলেন,যুবকেরা লেখাপড়া করে চাকরির চেষ্টার পাশা পাশি যদি প্রশিক্ষণ নিয়ে,কুল সহ বিভিন্ন মৌসুমি ফলের চাষে অগ্রসর হয় তাহলে তাদের বেকারত্ব ধুর হবে।

নিউজবিজয়২৪/এফএইচএন

👉 নিউজবিজয় ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন ✅

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার দিন।

NewsBijoy24.Com

নিউজবিজয়২৪.কম একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল। বস্তুনিষ্ঠ ও তথ্যভিত্তিক সংবাদ প্রকাশের প্রতিশ্রুতি নিয়ে ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। উৎসর্গ করলাম আমার বাবার নামে, যাঁর স্নেহ-সান্নিধ্যের পরশ পরিবারের সুখ-দু:খ,হাসি-কান্না,ব্যথা-বেদনার মাঝেও আপার শান্তিতে পরিবার তথা সমাজে মাথা উচুঁ করে নিজের অস্তিত্বকে মেলে ধরতে পেরেছি।

দিঘলিয়া উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে যুবলীগ নেতা সৈয়দ জামিল মোর্শেদ মাসুমের বিকল্প নেই

prayer-image
  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৪:৩০ পূর্বাহ্ণ
  • ১২:০৫ অপরাহ্ণ
  • ৪:৩২ অপরাহ্ণ
  • ৬:২৪ অপরাহ্ণ
  • ৭:৩৯ অপরাহ্ণ
  • ৫:৪৩ পূর্বাহ্ণ


পাহাড়ি অঞ্চলে কুল চাষের সমাহার

প্রকাশিত সময় :- ০১:২৫:৫৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৪ জানুয়ারী ২০২৩

পাহাড়ি জেলা খাগড়াছড়ির মহালছড়ি উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় দেখা যায় কুল চাষের সমাহার।
এবং কুল বাগনের মাধ্যমে ধুর হচ্ছে যুবকের বেকারত্ব।

মহালছড়ির,মাইসছড়ি ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডে পশ্চিম কায়াংঘাট এলাকায় বসবাসরত। বাবু দিবাকর চাকমার কুল বাগান ঘুরে জানা যায়।
তিনি ৪০শতক জমিতে মোট ২২০ টি কুল গাছ লাগিয়েছে।তার মোট খরচ ৪০ হাজার টাকা,ফলন ভালো হওয়াতে তিনি বলেন প্রতিটি গাছ থেকে ১০-১৫ কেজি কুল পাওয়া যাবে।
যদি বাজার দর ভালো হয় তাহলে তিনি লাভবান হবেন।

উপজেলা কৃষি কর্মকার্তা বলেন,পাহাড়ি জমি হওয়া সত্তেও সমতল ও হালকা উঁচু জমি গুলো তে কুলের ভালো ফলন দেখা যাচ্ছে।
তিনি আরো বলেন,যুবকেরা লেখাপড়া করে চাকরির চেষ্টার পাশা পাশি যদি প্রশিক্ষণ নিয়ে,কুল সহ বিভিন্ন মৌসুমি ফলের চাষে অগ্রসর হয় তাহলে তাদের বেকারত্ব ধুর হবে।

নিউজবিজয়২৪/এফএইচএন