ঢাকা ১২:৩৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দেশে ‘পেনফিল’–এর প্রথম কারখানা উদ্বোধন এসকেএফের

  • নিউজ বিজয় ডেস্ক :-
  • প্রকাশিত সময় :- ১০:১১:২৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২
  • ৩৩০ পড়া হয়েছে। নিউজবিজয় ২৪.কম-১৫ ডিসেম্বরে ৯ বছরে পর্দাপন

ইনসুলিনের কার্টিজ দেশেই তৈরি হবে। দেশের শীর্ষস্থানীয় ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান এসকেএফ ও বিশ্বখ্যাত ইনসুলিন প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান নভো নরডিস্ক যৌথভাবে ইনসুলিনের কার্টিজ তৈরি করবে। এর ফলে দেশের ডায়াবেটিস রোগীদের কাছে ইনসুলিন সহজলভ্য হবে।
আজ মঙ্গলবার এসকেএফের টঙ্গী ওষুধ কারখানা প্রাঙ্গণে পৃথক একটি বহুতল ভবনে ইনসুলিনের কার্টিজ তৈরির ইউনিট উদ্বোধন করেন ট্রান্সকম গ্রুপের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) ও এসকেএফের সিইও ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক সিমিন রহমান, ডেনমার্কের নভো নরডিস্কের ভাইস প্রেসিডেন্ট (করপোরেট) লার্স আর্নল্ডসেন এবং নভো নরডিস্কের বাংলাদেশের মহাব্যবস্থাপক রাজর্ষী দে সরকার। কারখানা উদ্বোধনের সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ডায়াবেটিস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি অধ্যাপক এ কে আজাদ খান, ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোহাম্মদ ইউসুফ, ঢাকার ডেনমার্কের রাষ্ট্রদূত উইনি এস্ট্রাপ পিটারসেন। ইনসুলিনের কার্টিজ বিদেশ থেকে আমদানি করে বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান বাজারজাত করে। সেখানে বাংলাদেশে ইনসুলিনের কার্টিজ তৈরির উদ্যোগকে ঐতিহাসিক ঘটনা হিসেবে বর্ণনা করেছেন উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান দুটির কর্মকর্তারা। এসকেএফের কারখানায় উৎপাদন শুরু হলে তা হবে দেশে উৎপাদিত প্রথম আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ডের ইনসুলিন কার্টিজ। এটি প্রযুক্তি হস্তান্তর বা টেকনোলজি ট্রান্সফারের ক্ষেত্রেও বড় ঘটনা। ডায়াবেটিস চিকিৎসায় ইনসুলিন প্রয়োজন হয়। ইনজেকশনের মাধ্যমে রোগীর শরীরে প্রয়োজন অনুযায়ী ইনসুলিন দেওয়া হয়। কিছু ক্ষেত্রে শিশিতে ইনসুলিন থাকে। অন্যান্য ওষুধের মতো শিশি থেকে সুইয়ের মাধ্যমে তা বের করে রোগীর শরীরে দেওয়া হয়। আবার কলমের মতো একটা যন্ত্র ব্যবহার করে ইনসুলিন দেওয়া যায়। কোনো কোনো কলম একবার ব্যবহার করা হয়, ইনসুলিন ফুরিয়ে গেলে কলম ফেলে দিতে হয়। আবার কিছু কলম আছে যাতে ইনসুলিন শেষ হলে আবার ইনসুলিন ঢোকানো যায়। এটা ঢোকানো হয় কার্টিজের মাধ্যমে। এই কার্টিজকে বলা হয় ‘পেনফিল’। এই ‘পেনফিল’ তৈরি হবে এসকেএফের কারখানায়।

নিউজ বিজয়/নজরুল

👉 নিউজবিজয় ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন ✅

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার দিন।

NewsBijoy24.Com

নিউজবিজয়২৪.কম একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল। বস্তুনিষ্ঠ ও তথ্যভিত্তিক সংবাদ প্রকাশের প্রতিশ্রুতি নিয়ে ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। উৎসর্গ করলাম আমার বাবার নামে, যাঁর স্নেহ-সান্নিধ্যের পরশ পরিবারের সুখ-দু:খ,হাসি-কান্না,ব্যথা-বেদনার মাঝেও আপার শান্তিতে পরিবার তথা সমাজে মাথা উচুঁ করে নিজের অস্তিত্বকে মেলে ধরতে পেরেছি।

আদিতমারীতে স্ত্রীকে নির্যাতন করে হত্যার অভিযোগ-স্বামী আটক

দেশে ‘পেনফিল’–এর প্রথম কারখানা উদ্বোধন এসকেএফের

প্রকাশিত সময় :- ১০:১১:২৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২

ইনসুলিনের কার্টিজ দেশেই তৈরি হবে। দেশের শীর্ষস্থানীয় ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান এসকেএফ ও বিশ্বখ্যাত ইনসুলিন প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান নভো নরডিস্ক যৌথভাবে ইনসুলিনের কার্টিজ তৈরি করবে। এর ফলে দেশের ডায়াবেটিস রোগীদের কাছে ইনসুলিন সহজলভ্য হবে।
আজ মঙ্গলবার এসকেএফের টঙ্গী ওষুধ কারখানা প্রাঙ্গণে পৃথক একটি বহুতল ভবনে ইনসুলিনের কার্টিজ তৈরির ইউনিট উদ্বোধন করেন ট্রান্সকম গ্রুপের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) ও এসকেএফের সিইও ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক সিমিন রহমান, ডেনমার্কের নভো নরডিস্কের ভাইস প্রেসিডেন্ট (করপোরেট) লার্স আর্নল্ডসেন এবং নভো নরডিস্কের বাংলাদেশের মহাব্যবস্থাপক রাজর্ষী দে সরকার। কারখানা উদ্বোধনের সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ডায়াবেটিস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি অধ্যাপক এ কে আজাদ খান, ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোহাম্মদ ইউসুফ, ঢাকার ডেনমার্কের রাষ্ট্রদূত উইনি এস্ট্রাপ পিটারসেন। ইনসুলিনের কার্টিজ বিদেশ থেকে আমদানি করে বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান বাজারজাত করে। সেখানে বাংলাদেশে ইনসুলিনের কার্টিজ তৈরির উদ্যোগকে ঐতিহাসিক ঘটনা হিসেবে বর্ণনা করেছেন উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান দুটির কর্মকর্তারা। এসকেএফের কারখানায় উৎপাদন শুরু হলে তা হবে দেশে উৎপাদিত প্রথম আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ডের ইনসুলিন কার্টিজ। এটি প্রযুক্তি হস্তান্তর বা টেকনোলজি ট্রান্সফারের ক্ষেত্রেও বড় ঘটনা। ডায়াবেটিস চিকিৎসায় ইনসুলিন প্রয়োজন হয়। ইনজেকশনের মাধ্যমে রোগীর শরীরে প্রয়োজন অনুযায়ী ইনসুলিন দেওয়া হয়। কিছু ক্ষেত্রে শিশিতে ইনসুলিন থাকে। অন্যান্য ওষুধের মতো শিশি থেকে সুইয়ের মাধ্যমে তা বের করে রোগীর শরীরে দেওয়া হয়। আবার কলমের মতো একটা যন্ত্র ব্যবহার করে ইনসুলিন দেওয়া যায়। কোনো কোনো কলম একবার ব্যবহার করা হয়, ইনসুলিন ফুরিয়ে গেলে কলম ফেলে দিতে হয়। আবার কিছু কলম আছে যাতে ইনসুলিন শেষ হলে আবার ইনসুলিন ঢোকানো যায়। এটা ঢোকানো হয় কার্টিজের মাধ্যমে। এই কার্টিজকে বলা হয় ‘পেনফিল’। এই ‘পেনফিল’ তৈরি হবে এসকেএফের কারখানায়।

নিউজ বিজয়/নজরুল