ঢাকা ০২:২৬ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ২৯ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ঈদ মোবারক

দেশের সর্ববৃহৎ তিস্তা ব্যারেজ; এ যেন সমুদ্র সৈকতের ছোঁয়া

  • নিউজ বিজয় ডেস্ক :-
  • প্রকাশিত সময় :- ০১:৪৬:১৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৩
  • ৩৭৬ পড়া হয়েছে। নিউজবিজয় ২৪.কম-১৫ ডিসেম্বরে ৯ বছরে পর্দাপন

দেশের সর্ববৃহৎ তিস্তা ব্যারেজ এবং তিস্তার নদী ঘিরে দর্শনার্থীর পদচারণা এবারও ঈদ উপলক্ষে এর ব্যতিক্রম ঘটেনি। এ যেন সমুদ্রের তীরের সৈকতের ছোঁয়া। রিতিমত সেখানে গ্রামীন মেলা বসেছে।

ঈদ আনন্দে দর্শনার্থীদের পদচারণায় মুখর হয়ে উঠেছে নীলফামারীর ডালিয়া তিস্তা ব্যারাজ এলাকা। তিস্তা ব্যারাজের দুই কিলোমিটার এলাকা জুড়ে দর্শনার্থীদের ঢল । ঈদের দিনে দুপুরে পর তিস্তা ব্যারাজে বিনোদন পিপাসু মানুষের উপচে পড়া ভিড় লক্ষ্যণীয়। ঈদের ছুটির তিনদিন চলবে আনন্দ উৎসব।

দুই সপ্তাহ ধরে প্রচন্ড তাপদাহের পর স্বস্তি খুঁজতে শনিবার (২২ এপ্রিল) ঈদের প্রথম দিন দর্শনার্থীরা দূর-দূরান্ত থেকে আসে তিস্তা ব্যারাজ। ব্যারাজ এলাকায় জমে উঠেছে বিভিন্ন দোকান পাট। সরেজমিনে দেখা গেছে, ঈদ উপলক্ষে তিস্তার বুকে স্পিডবোট ও লালনীল কাপড়ের ছাউনি লাগানো বেশ কয়েকটি ইঞ্জিন চালিত নৌকা চলছে। দ্রুত বেগে এপাশ থেকে ওপাশে ছুটে চলছেন পর্যটকরা।

মাত্র ৫০ টাকায় নদীর ভ্রমনে ভাসছেন দর্শনার্থীরা। হৈ হুল্লোড়ে মেতে উঠছেন সবাই। বড় বড় ঢেউ এসে ধাক্কা দিচ্ছে তিস্তা কূলে। ছিটকে আসা জলরাশির আনন্দে মেতে উঠছে সবাই।ঈদের উৎসবে রঙিন হয়ে উঠেছে ছোট-বড় সব বয়সী মানুষের মন। আনন্দের মাত্রা বাড়াতে ক্যামেরা ও মোবাইলে ছবি তুলে স্মৃতির ফ্রেমে বন্দি করছেন প্রিয় মুহূর্তগুলো। জেলা ও উপজেলা শহর ও প্রত্যন্ত অঞ্চলের বিনোদনপ্রেমীরা ছুটে আসছে।

সেখানে বসেছে গ্রামীন মেলার হাট। নানা রকম পণ্য দিয়ে সাজানো হয়েছে দোকানগুলো। বিভিন্ন খেলনা, বাঁশি, বেলুন, মাটির গাড়ি ও খাবারের দোকান। নদীর বুকে ভাসমান বিলুপ্ত বেশ কিছু পাল তোলা নৌকা নজর কাড়ছে দর্শনার্থীদের। দর্শনার্থীরা জানায়, গত কয়েকদিনের দাহদাহে প্রাণ ছিল ওষ্ঠাগত। তাই ঈদ উপলক্ষে গ্রামে পরিবার পরিজন নিয়ে প্রকৃতির হাওয়া পেতেতিস্তা ব্যারাজে ঘুরতে এসেছে।

ঝালমুড়ি-চানাচুর ও আচার বিক্রেতা বলেন, ঈদের তিন দিন চলবে এই দর্শনার্থীদের ভীড়। আসা করি এই তিনদিনে ১০ হাজার টাকার ওপরে বিক্রি হয়েছে। এর মধ্যে তিন থেকে চার হাজার টাকা লাভ হবে। বাহারি খেলনা বিক্রি করে ভালো ব্যবসা হচ্ছে বলেও জানালেন খেলনা বিক্রেতা সুভাষ চন্দ্র রায়।

তিস্তা নদীর ধারে একেবারে গ্রাম্য পরিবেশে হলেও নিরাপত্তা নিয়ে তেমন কোনো ঝুঁক্কি পোহাতে হচ্ছেনা দর্শনার্থীদের। ছোট ছোট দোকানে সাশ্রয়ী দামে পাওয়া যায় নাস্তা-খাবারও। ব্যারেজের বিশেষ অবকাঠামো, অবসর (রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন), কন্ট্রোল রুমম, ব্লক আর পাথরে পিচিং করা নদী পাড়, ফুল আর বনোজ গাছের বাগানগুলো ঘুরতে আসা মানুষগুলোর যেন সহজেই মন কাড়ে।

মন চাইলে পাল তোলা নৌকাতেও দল বেঁধে ভ্রমণ করার সুযোগ মেলে তাদের। দোয়ানী পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বরত এসআই সিদ্দিক বলেন, ঈদ উপলক্ষে অন্য বছরের তুলনায় ব্যারাজ এলাকায় এবার প্রচুর মানুষের সমাগাম ঘটেছে। পুলিশ ও আনসার সদস্যরা দর্শনার্থীদের নিরপক্তায় নিয়োজিত রয়েছে।

নিউজবিজয়২৪/এফএইচএন

👉 নিউজবিজয় ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন ✅

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার দিন।

NewsBijoy24.Com

নিউজবিজয়২৪.কম একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল। বস্তুনিষ্ঠ ও তথ্যভিত্তিক সংবাদ প্রকাশের প্রতিশ্রুতি নিয়ে ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। উৎসর্গ করলাম আমার বাবার নামে, যাঁর স্নেহ-সান্নিধ্যের পরশ পরিবারের সুখ-দু:খ,হাসি-কান্না,ব্যথা-বেদনার মাঝেও আপার শান্তিতে পরিবার তথা সমাজে মাথা উচুঁ করে নিজের অস্তিত্বকে মেলে ধরতে পেরেছি।

খুলনায় আওয়ামী লীগ নেতাসহ গুলিবিদ্ধ ৩

prayer-image
  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৪:৩০ পূর্বাহ্ণ
  • ১২:০৫ অপরাহ্ণ
  • ৪:৩২ অপরাহ্ণ
  • ৬:২৪ অপরাহ্ণ
  • ৭:৩৯ অপরাহ্ণ
  • ৫:৪৩ পূর্বাহ্ণ


দেশের সর্ববৃহৎ তিস্তা ব্যারেজ; এ যেন সমুদ্র সৈকতের ছোঁয়া

প্রকাশিত সময় :- ০১:৪৬:১৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৩

দেশের সর্ববৃহৎ তিস্তা ব্যারেজ এবং তিস্তার নদী ঘিরে দর্শনার্থীর পদচারণা এবারও ঈদ উপলক্ষে এর ব্যতিক্রম ঘটেনি। এ যেন সমুদ্রের তীরের সৈকতের ছোঁয়া। রিতিমত সেখানে গ্রামীন মেলা বসেছে।

ঈদ আনন্দে দর্শনার্থীদের পদচারণায় মুখর হয়ে উঠেছে নীলফামারীর ডালিয়া তিস্তা ব্যারাজ এলাকা। তিস্তা ব্যারাজের দুই কিলোমিটার এলাকা জুড়ে দর্শনার্থীদের ঢল । ঈদের দিনে দুপুরে পর তিস্তা ব্যারাজে বিনোদন পিপাসু মানুষের উপচে পড়া ভিড় লক্ষ্যণীয়। ঈদের ছুটির তিনদিন চলবে আনন্দ উৎসব।

দুই সপ্তাহ ধরে প্রচন্ড তাপদাহের পর স্বস্তি খুঁজতে শনিবার (২২ এপ্রিল) ঈদের প্রথম দিন দর্শনার্থীরা দূর-দূরান্ত থেকে আসে তিস্তা ব্যারাজ। ব্যারাজ এলাকায় জমে উঠেছে বিভিন্ন দোকান পাট। সরেজমিনে দেখা গেছে, ঈদ উপলক্ষে তিস্তার বুকে স্পিডবোট ও লালনীল কাপড়ের ছাউনি লাগানো বেশ কয়েকটি ইঞ্জিন চালিত নৌকা চলছে। দ্রুত বেগে এপাশ থেকে ওপাশে ছুটে চলছেন পর্যটকরা।

মাত্র ৫০ টাকায় নদীর ভ্রমনে ভাসছেন দর্শনার্থীরা। হৈ হুল্লোড়ে মেতে উঠছেন সবাই। বড় বড় ঢেউ এসে ধাক্কা দিচ্ছে তিস্তা কূলে। ছিটকে আসা জলরাশির আনন্দে মেতে উঠছে সবাই।ঈদের উৎসবে রঙিন হয়ে উঠেছে ছোট-বড় সব বয়সী মানুষের মন। আনন্দের মাত্রা বাড়াতে ক্যামেরা ও মোবাইলে ছবি তুলে স্মৃতির ফ্রেমে বন্দি করছেন প্রিয় মুহূর্তগুলো। জেলা ও উপজেলা শহর ও প্রত্যন্ত অঞ্চলের বিনোদনপ্রেমীরা ছুটে আসছে।

সেখানে বসেছে গ্রামীন মেলার হাট। নানা রকম পণ্য দিয়ে সাজানো হয়েছে দোকানগুলো। বিভিন্ন খেলনা, বাঁশি, বেলুন, মাটির গাড়ি ও খাবারের দোকান। নদীর বুকে ভাসমান বিলুপ্ত বেশ কিছু পাল তোলা নৌকা নজর কাড়ছে দর্শনার্থীদের। দর্শনার্থীরা জানায়, গত কয়েকদিনের দাহদাহে প্রাণ ছিল ওষ্ঠাগত। তাই ঈদ উপলক্ষে গ্রামে পরিবার পরিজন নিয়ে প্রকৃতির হাওয়া পেতেতিস্তা ব্যারাজে ঘুরতে এসেছে।

ঝালমুড়ি-চানাচুর ও আচার বিক্রেতা বলেন, ঈদের তিন দিন চলবে এই দর্শনার্থীদের ভীড়। আসা করি এই তিনদিনে ১০ হাজার টাকার ওপরে বিক্রি হয়েছে। এর মধ্যে তিন থেকে চার হাজার টাকা লাভ হবে। বাহারি খেলনা বিক্রি করে ভালো ব্যবসা হচ্ছে বলেও জানালেন খেলনা বিক্রেতা সুভাষ চন্দ্র রায়।

তিস্তা নদীর ধারে একেবারে গ্রাম্য পরিবেশে হলেও নিরাপত্তা নিয়ে তেমন কোনো ঝুঁক্কি পোহাতে হচ্ছেনা দর্শনার্থীদের। ছোট ছোট দোকানে সাশ্রয়ী দামে পাওয়া যায় নাস্তা-খাবারও। ব্যারেজের বিশেষ অবকাঠামো, অবসর (রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন), কন্ট্রোল রুমম, ব্লক আর পাথরে পিচিং করা নদী পাড়, ফুল আর বনোজ গাছের বাগানগুলো ঘুরতে আসা মানুষগুলোর যেন সহজেই মন কাড়ে।

মন চাইলে পাল তোলা নৌকাতেও দল বেঁধে ভ্রমণ করার সুযোগ মেলে তাদের। দোয়ানী পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বরত এসআই সিদ্দিক বলেন, ঈদ উপলক্ষে অন্য বছরের তুলনায় ব্যারাজ এলাকায় এবার প্রচুর মানুষের সমাগাম ঘটেছে। পুলিশ ও আনসার সদস্যরা দর্শনার্থীদের নিরপক্তায় নিয়োজিত রয়েছে।

নিউজবিজয়২৪/এফএইচএন