দিরাইয়ের ছিছরাপুর জলমহালটি লীজ ছাড়াই তলা শুকিয়ে মৎস্য আহরন » NewsBijoy24 । Online Newspaper of Bangladesh.
ঢাকা ০৬:৩৫ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দিরাইয়ের ছিছরাপুর জলমহালটি লীজ ছাড়াই তলা শুকিয়ে মৎস্য আহরন

স্বাধীনতার ৫৩ বছরে ও সরকারের গেজেটভূক্ত না হওয়ায় গত ৫২ বছর ধরে স্থানীয়ভাবে পেশীশক্তির জোরে স্বাধীনতা বিরোধী কুখ্যাত রাজাকার ও পরবর্তী তার সন্তান বর্তমান সরমঙ্গল ইউপি চেয়ারম্যান কর্তৃক সরকারের রাজস্ব ফাকিঁ দিয়ে এই জলমহালটি শুকিয়ে মৎস্য আহরণ ও বাজারজাত করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়া হলেও দেখার যেন কেহ নেই। এমন অভিযোগ এনে গত ২০২৩ সালের ১৩ই নভেম্বর দিরাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।ইউনিয়নের জারলিয়া গ্রামের মৃত আব্দুল মনিরের ছেলে দৈনিক সকালের সময় পত্রিকার উপজেলা প্রতিনিধি মোঃ জাকির হোসেন ।
ঘটনাটি ঘটেছে সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার সরমঙ্গল ইউনিয়নের নিম্ন তপশীল বর্ণিত জবানিয়া মৌজার জেএল নং-৩৬,খতিয়ান নং-০১. সাবেক দাগ নম্বর ১৯১ এবং বর্তমান ২৫০ হাল দাগের ৪.৬০ একর ছিছরাপুর জলমহালটি দীর্ঘ ৫২ বছর ধরে সরকারের রাজস্ব ফাঁিক দিয়ে জারলিয়া গ্রামের মৃত আব্দুল মতলিব ও বর্তমানে তার ছেলে সরমঙ্গল ইউপি চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন জুয়েল ও তার আপন চাচা পরিষদের ইউপি সদস্য কাতার মিয়া গত দু”দিন ধরে বিলে দুটি পাওয়ার পাম্প (মেশিন) বসিয়ে বিলের তলা শুকিয়ে মৎস্য আহরণ ও বাজারজাত করার চেষ্টা করছেন। প্রতিবছর এই মৌসুমে যেখানে বিলের চতুরদিকে ৪০০ শত একর (১২০০ কেদার) বোরো জমিন আবাদের কাজ শুরু করেছেন জরালিয়া গ্রাম সহ আশপাশের শত শত কৃষকরা। এই মৌসুমে বোরো জমিতে পানি সেচের একমাত্র অবলম্বন এই ছিছরাপুর জলমহালটি। কিন্তু কোন লীজ ছাড়াই প্রতিবছর সরকারকে ৩/৪ লাখ টাকা রাজস্ব ফাঁিক দিয়ে পেশীশক্তির জোরে লাটিয়াল বাহিনী নিয়ে এই পৌষ মাসের শেষের দিকে জলমহালটি শুকিয়ে মৎস্য আহরণ করে প্রতিবছর বিল থেকে ৮ থেকে ১০ লাখ টাকার দেশীয় বিভিন্ন প্রজাতির বোয়াল,রুই,গাগট(আইর),শোলসহ মাছ বিক্রি করে গত ৫২ বছরে এই বিল থেকেই কেবল প্রায় আড়াই কোটি টাকা ইনকাম করেই রাতারাতি আঙ্গুল ফুলে গলাগাছ বণে গেছেন চেয়ারম্যান জুয়েল ও তার পরিবারের সদস্যরা। অথচ কৃষকরা বোরো এই মৌসুমে জমিতে পানি সেচ দিতে না পারার আহাজারি যেন কারো কানে পৌছেনি। মৎস্য নীতিমালা আইনে কোন জলমহাল লীজ নিলে ও ভাসমান অবস্থায় মৎস্য আহরণের কথা বলা রয়েছে।কিন্ত ওরা লীজ না নিয়েও কিভাবে বিল শুকিয়ে মৎস্য আহরণের চেষ্টা করছেন এমন অভিযোগ স্থানীয় কৃষকদের। বিলের চতুরদিকে কৃষকরা বোরো জমি আবাদ করে এই বিল থেকে পানি সেচ করতে কেহ সাহস পাচ্ছেন না। কিন্তু সরমঙ্গল ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন জুয়েল ও তার আপন চাচা ইউপি সদস্য কাতার মিয়া এতই ক্ষমতাবান যে তারা শত শত কৃষকদের স্বার্থকে বির্সজন দিয়ে অবৈধভাবে এই ছিছরাপুর জলমহালটি শুকিয়ে মৎস্য আহরণ করে লাখ লাখ টাকা কামানোর ধান্দায় ব্যস্ত থাকলে ও তাদের ভয়ে কোন কৃষক মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছেন না। প্রশাসনের তরফ থেকে এত নিষেধাজ্ঞার পরও আজ সোমবার দুটি মেশিন লাগিয়ে জলমহাল শুকিয়ে মাছ ধরার পর আবারো বিলে পানি দিয়ে ভরাট করার চিন্তায় চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন জুয়েল ও তার আপন চাচা ইউপি সদস্য মোঃ কাত্তার মিয়া এমন অভিযোগ স্থানীয় একাধিক কৃষকের।
খবর পেয়ে গণমাধ্যমকর্মীরা সরেজমিনে ঘটনাস্থলে গিয়ে দুটি মেশিন লাগিয়ে জলমহজালটি শুকনের চেষ্টা করছিলেন সেই দৃশ্যই চোখে পড়ে। গণমাধ্যমকর্মীদের উপস্থিতি টের পেয়ে শ্রমিকসহ চেয়ারম্যান ও তার চাচা পালিয়ে যান। খবর পেয়ে সন্ধ্যায় দিরাই উপজেলা সহকারী ভূমি কমিশনার(এসিল্যান্ড) ঘটনাস্থলে গিয়ে জলমহালটি শুকানোর তথ্য প্রমাণ পেয়ে অবৈধভাবে বিলটি না শুকানো এবং মৎস্য আহরণ থেকে বিরত থাকার নির্দেশ প্রদান করলে ও রাতেই চলছে দুটি মেশিন দিয়ে বিল শুকানোর মহোৎসব। মৎস্য আইনে এই জলমহালটি প্রতিবছর কমপক্ষে ৪ লাখ টাকায় সরকার থেকে লীজনিয়ে ভাসমান অবস্থান মাছ ধরার কথা। কিন্তু কথায় আছে না চোর না শুনে ধর্মের কাহিনী। পেশীশক্তির জোরে মৃত আব্দুল মতলিবের আমল এবং তার ছেলে সরমঙ্গল ইউপি চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন জুয়েল ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা গত ৫২ বছর ধরে জোর জবরধস্তি করে সরকারকে ২ কোটি ৮ লাখ টাকা রাজস্ক বি ত করে বিল রোপনকৃত জমির তলা শুকিয়ে ফেটে গেলেও এই বিল থেকে জমিতে পানি সেচের কোন সাহস পাওয়া যায়নি। তারা ওদের অপর্কমের জন্য সরকারের নিকট বিচার চান।
এ ব্যাপারে সরমঙ্গল ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক ইউপি সদস্য ও জারলিয়া গ্রামের মোঃ তেরাব আলী,কৃষক সুবল দাস,সঞ্জিত দাস জানান,এই চেয়ারম্যান জুয়েল গত ৫২ বছর ধরে এই ছিছরাপুর বিল ও আরেকটি ছ্টো বিল ক্ষমতার দাপটে লীজ ছাড়াই ভোগদখল করে আসছেন। এ বছর অবশ্যে ছোট বিলটি অন্যত্র বিক্রি করে দিয়েছেন এবং ছিছরাপুর বিলের তলা শুকিয়ে মাছ ধরতে দুইটি মেশিন বিলে লাগিয়ে বিল শুকানোর কাজ চলছে। তবে বিলের চারদিকে কৃষকরা বোরো জমিন আবাদেও কাজ করছেন। কয়দিন পর কৃষকদের জমি যখন শুকিয়ে যাবে তখন জমিতে কোথা থেকে পানি দিবেন সেটা কারো জানা নেই। তিনি সরকার ও প্রশাসনের নিকট এই জলমহালটি রক্ষা করে কৃষকদের জমিতে পানি সেচের ব্যবস্থা নিশ্চিত করার দাবী জানান।
এ ব্যাপারে জলমহালটি ভোগদখলকারী চেয়ারম্যানের আপন চাচা বর্তমান ইউপি মোঃ কাত্তার মিয়ার সাথে সরাসরি বিলের পাড়ে দেখা হলে দুটি মেশিন লাগানোর সত্যতা নিশ্চিত করলে বিলের তলা শুকিয়ে মৎস্য আহরণের কথা অস্বীকার করে বলেন তার জমিতে পানি সেচ দিচ্ছেন বলেও দাবী করেন।
এ ব্যাপারে অবৈধভাবে ছেছারপুর জলমহাল ফিসিংকারী সরমঙ্গল ইউপি চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন জুয়েলের মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলে ও তিনি ফোন রিসিভ না করায় তার বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি।
এ ব্যাপারে দিরাই উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) জনি রায় জানান,চেয়ারম্যান ও তার চাচা সরকার থেকে লীজ না নিয়ে কৃষকদের স্বার্থকে বির্সজন দিয়ে জলমহালটি শুকিয়ে মাছ ধরার চেষ্টা করছেন তা সম্পূর্ণভাবে আইন পরিপন্থি। তিরি তাদেরকে জানিয়ে দিয়েছেন আজকের পর যদি এই বিলটি অবৈধভাবে শুকিয়ে মৎস্য আহরণের চেষ্টা করেন তাহলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের হুশিয়ারী দেন ।

নিউজবিজয়২৪/এফএইচএন

নিউজবিজয় ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার দিন।

NewsBijoy24.Com

নিউজবিজয়২৪.কম একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল। বস্তুনিষ্ঠ ও তথ্যভিত্তিক সংবাদ প্রকাশের প্রতিশ্রুতি নিয়ে ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। উৎসর্গ করলাম আমার বাবার নামে, যাঁর স্নেহ-সান্নিধ্যের পরশ পরিবারের সুখ-দু:খ,হাসি-কান্না,ব্যথা-বেদনার মাঝেও আপার শান্তিতে পরিবার তথা সমাজে মাথা উচুঁ করে নিজের অস্তিত্বকে মেলে ধরতে পেরেছি।
জনপ্রিয় সংবাদ

ইতিহাসের এই দিনে: ২৩ ফেব্রুয়ারি:-২০২৪

Advertisement

দিরাইয়ের ছিছরাপুর জলমহালটি লীজ ছাড়াই তলা শুকিয়ে মৎস্য আহরন

প্রকাশিত সময় :- ০৫:৩৫:০৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২৪

স্বাধীনতার ৫৩ বছরে ও সরকারের গেজেটভূক্ত না হওয়ায় গত ৫২ বছর ধরে স্থানীয়ভাবে পেশীশক্তির জোরে স্বাধীনতা বিরোধী কুখ্যাত রাজাকার ও পরবর্তী তার সন্তান বর্তমান সরমঙ্গল ইউপি চেয়ারম্যান কর্তৃক সরকারের রাজস্ব ফাকিঁ দিয়ে এই জলমহালটি শুকিয়ে মৎস্য আহরণ ও বাজারজাত করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়া হলেও দেখার যেন কেহ নেই। এমন অভিযোগ এনে গত ২০২৩ সালের ১৩ই নভেম্বর দিরাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।ইউনিয়নের জারলিয়া গ্রামের মৃত আব্দুল মনিরের ছেলে দৈনিক সকালের সময় পত্রিকার উপজেলা প্রতিনিধি মোঃ জাকির হোসেন ।
ঘটনাটি ঘটেছে সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার সরমঙ্গল ইউনিয়নের নিম্ন তপশীল বর্ণিত জবানিয়া মৌজার জেএল নং-৩৬,খতিয়ান নং-০১. সাবেক দাগ নম্বর ১৯১ এবং বর্তমান ২৫০ হাল দাগের ৪.৬০ একর ছিছরাপুর জলমহালটি দীর্ঘ ৫২ বছর ধরে সরকারের রাজস্ব ফাঁিক দিয়ে জারলিয়া গ্রামের মৃত আব্দুল মতলিব ও বর্তমানে তার ছেলে সরমঙ্গল ইউপি চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন জুয়েল ও তার আপন চাচা পরিষদের ইউপি সদস্য কাতার মিয়া গত দু”দিন ধরে বিলে দুটি পাওয়ার পাম্প (মেশিন) বসিয়ে বিলের তলা শুকিয়ে মৎস্য আহরণ ও বাজারজাত করার চেষ্টা করছেন। প্রতিবছর এই মৌসুমে যেখানে বিলের চতুরদিকে ৪০০ শত একর (১২০০ কেদার) বোরো জমিন আবাদের কাজ শুরু করেছেন জরালিয়া গ্রাম সহ আশপাশের শত শত কৃষকরা। এই মৌসুমে বোরো জমিতে পানি সেচের একমাত্র অবলম্বন এই ছিছরাপুর জলমহালটি। কিন্তু কোন লীজ ছাড়াই প্রতিবছর সরকারকে ৩/৪ লাখ টাকা রাজস্ব ফাঁিক দিয়ে পেশীশক্তির জোরে লাটিয়াল বাহিনী নিয়ে এই পৌষ মাসের শেষের দিকে জলমহালটি শুকিয়ে মৎস্য আহরণ করে প্রতিবছর বিল থেকে ৮ থেকে ১০ লাখ টাকার দেশীয় বিভিন্ন প্রজাতির বোয়াল,রুই,গাগট(আইর),শোলসহ মাছ বিক্রি করে গত ৫২ বছরে এই বিল থেকেই কেবল প্রায় আড়াই কোটি টাকা ইনকাম করেই রাতারাতি আঙ্গুল ফুলে গলাগাছ বণে গেছেন চেয়ারম্যান জুয়েল ও তার পরিবারের সদস্যরা। অথচ কৃষকরা বোরো এই মৌসুমে জমিতে পানি সেচ দিতে না পারার আহাজারি যেন কারো কানে পৌছেনি। মৎস্য নীতিমালা আইনে কোন জলমহাল লীজ নিলে ও ভাসমান অবস্থায় মৎস্য আহরণের কথা বলা রয়েছে।কিন্ত ওরা লীজ না নিয়েও কিভাবে বিল শুকিয়ে মৎস্য আহরণের চেষ্টা করছেন এমন অভিযোগ স্থানীয় কৃষকদের। বিলের চতুরদিকে কৃষকরা বোরো জমি আবাদ করে এই বিল থেকে পানি সেচ করতে কেহ সাহস পাচ্ছেন না। কিন্তু সরমঙ্গল ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন জুয়েল ও তার আপন চাচা ইউপি সদস্য কাতার মিয়া এতই ক্ষমতাবান যে তারা শত শত কৃষকদের স্বার্থকে বির্সজন দিয়ে অবৈধভাবে এই ছিছরাপুর জলমহালটি শুকিয়ে মৎস্য আহরণ করে লাখ লাখ টাকা কামানোর ধান্দায় ব্যস্ত থাকলে ও তাদের ভয়ে কোন কৃষক মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছেন না। প্রশাসনের তরফ থেকে এত নিষেধাজ্ঞার পরও আজ সোমবার দুটি মেশিন লাগিয়ে জলমহাল শুকিয়ে মাছ ধরার পর আবারো বিলে পানি দিয়ে ভরাট করার চিন্তায় চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন জুয়েল ও তার আপন চাচা ইউপি সদস্য মোঃ কাত্তার মিয়া এমন অভিযোগ স্থানীয় একাধিক কৃষকের।
খবর পেয়ে গণমাধ্যমকর্মীরা সরেজমিনে ঘটনাস্থলে গিয়ে দুটি মেশিন লাগিয়ে জলমহজালটি শুকনের চেষ্টা করছিলেন সেই দৃশ্যই চোখে পড়ে। গণমাধ্যমকর্মীদের উপস্থিতি টের পেয়ে শ্রমিকসহ চেয়ারম্যান ও তার চাচা পালিয়ে যান। খবর পেয়ে সন্ধ্যায় দিরাই উপজেলা সহকারী ভূমি কমিশনার(এসিল্যান্ড) ঘটনাস্থলে গিয়ে জলমহালটি শুকানোর তথ্য প্রমাণ পেয়ে অবৈধভাবে বিলটি না শুকানো এবং মৎস্য আহরণ থেকে বিরত থাকার নির্দেশ প্রদান করলে ও রাতেই চলছে দুটি মেশিন দিয়ে বিল শুকানোর মহোৎসব। মৎস্য আইনে এই জলমহালটি প্রতিবছর কমপক্ষে ৪ লাখ টাকায় সরকার থেকে লীজনিয়ে ভাসমান অবস্থান মাছ ধরার কথা। কিন্তু কথায় আছে না চোর না শুনে ধর্মের কাহিনী। পেশীশক্তির জোরে মৃত আব্দুল মতলিবের আমল এবং তার ছেলে সরমঙ্গল ইউপি চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন জুয়েল ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা গত ৫২ বছর ধরে জোর জবরধস্তি করে সরকারকে ২ কোটি ৮ লাখ টাকা রাজস্ক বি ত করে বিল রোপনকৃত জমির তলা শুকিয়ে ফেটে গেলেও এই বিল থেকে জমিতে পানি সেচের কোন সাহস পাওয়া যায়নি। তারা ওদের অপর্কমের জন্য সরকারের নিকট বিচার চান।
এ ব্যাপারে সরমঙ্গল ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক ইউপি সদস্য ও জারলিয়া গ্রামের মোঃ তেরাব আলী,কৃষক সুবল দাস,সঞ্জিত দাস জানান,এই চেয়ারম্যান জুয়েল গত ৫২ বছর ধরে এই ছিছরাপুর বিল ও আরেকটি ছ্টো বিল ক্ষমতার দাপটে লীজ ছাড়াই ভোগদখল করে আসছেন। এ বছর অবশ্যে ছোট বিলটি অন্যত্র বিক্রি করে দিয়েছেন এবং ছিছরাপুর বিলের তলা শুকিয়ে মাছ ধরতে দুইটি মেশিন বিলে লাগিয়ে বিল শুকানোর কাজ চলছে। তবে বিলের চারদিকে কৃষকরা বোরো জমিন আবাদেও কাজ করছেন। কয়দিন পর কৃষকদের জমি যখন শুকিয়ে যাবে তখন জমিতে কোথা থেকে পানি দিবেন সেটা কারো জানা নেই। তিনি সরকার ও প্রশাসনের নিকট এই জলমহালটি রক্ষা করে কৃষকদের জমিতে পানি সেচের ব্যবস্থা নিশ্চিত করার দাবী জানান।
এ ব্যাপারে জলমহালটি ভোগদখলকারী চেয়ারম্যানের আপন চাচা বর্তমান ইউপি মোঃ কাত্তার মিয়ার সাথে সরাসরি বিলের পাড়ে দেখা হলে দুটি মেশিন লাগানোর সত্যতা নিশ্চিত করলে বিলের তলা শুকিয়ে মৎস্য আহরণের কথা অস্বীকার করে বলেন তার জমিতে পানি সেচ দিচ্ছেন বলেও দাবী করেন।
এ ব্যাপারে অবৈধভাবে ছেছারপুর জলমহাল ফিসিংকারী সরমঙ্গল ইউপি চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন জুয়েলের মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলে ও তিনি ফোন রিসিভ না করায় তার বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি।
এ ব্যাপারে দিরাই উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) জনি রায় জানান,চেয়ারম্যান ও তার চাচা সরকার থেকে লীজ না নিয়ে কৃষকদের স্বার্থকে বির্সজন দিয়ে জলমহালটি শুকিয়ে মাছ ধরার চেষ্টা করছেন তা সম্পূর্ণভাবে আইন পরিপন্থি। তিরি তাদেরকে জানিয়ে দিয়েছেন আজকের পর যদি এই বিলটি অবৈধভাবে শুকিয়ে মৎস্য আহরণের চেষ্টা করেন তাহলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের হুশিয়ারী দেন ।

নিউজবিজয়২৪/এফএইচএন