ঢাকা ০১:১২ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঈদ মোবারক

তাহিরপুরের পল্লীতে গৃহবধুকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা ও লুটপাটের অভিযোগ

সুনামগঞ্জের তাহিরপুরের পল্লীতে গৃহবধুকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা ও লুটপাটের অভিযোগে আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। রবিবার দুপুরে তাহিরপুর জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ৭জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়। ঘটনাটি ঘটে গত ৩০ মে ২০২২ইং রোজ সোমবার সকাল অনুমান ১০ ঘটিকায় তাহিরপুর উপজেলার উত্তর মুখশেদপুর গ্রামের হাসেন আলীর বাড়ীতে।
মামলা সুত্রে জানা যায়, গত সোমবার সকাল অনুমান ১০ ঘটিকায় বাড়ীর মালিক হাসান আলী বাড়ীতে না থাকার সুযোগে দক্ষিন মুখশেদপুর গ্রামের আবুল কালামের পুত্র কামরুল ইসলাম ও আবুল কালামের নেতৃত্বে পুরান লাউড়গ্রামের মৃত কাদির মিয়ার পুত্র রফিক মিয়া, বাচ্চু মিয়ার পুত্র রুবেল মিয়া, দক্ষিন মুখশেদপুর গ্রামের জয়নাল মিয়ার পুত্র আকাইদ মিয়া, রবি আউয়ালের পুত্র হেলাল মিয়া এবং মাছিরপুর গ্রামের মৃত সিদ্দেক আলীর পুত্র আহমদ আলীসহ আরও অজ্ঞাত ৩/৪জনের সংঘবদ্ধ একটি সন্ত্রাসী দল দেশীয় অস্ত্র সস্ত্র নিয়ে হাসান আলীর বাড়ীতে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুর, লুটপাট ও হাসান আলীর স্ত্রী গৃহবধু রাবেয়া খাতুনকে কুপিয়ে মাথায় গুরুতর রক্তাক্ত জখম করে। এসময় হাসান আলীর মেয়ের জামাই শিপন মিয়া ও কন্যা নয়নতারা এগিয়ে আসলে তাদেরকেও কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। এ সময় ঘরে থাকা নগদ ২ লাখ টাকা, স্বর্নের অলংকার, সোকেইসে থাকা মূল্যবান দ্রব্যদি চুরি করিয়া প্রায় দেড় লাখ টাকা এবং ঘরে দরজা জানালা ভেঙ্গে প্রায় আরও ২০ হাজার টাকার ক্ষতি সাধন করে। গুরুতর আহত গৃহবধু রাবেয়া খাতুনকে সুনামগঞ্জ সদর হাপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে এবং সাক্ষী শিপন মিয়া ও নয়ন তারাকেও হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। এ ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রবাহের চেষ্টা করছে স্থানীয় একটি প্রভাবশালী চক্রের সদস্যরা। থানায় অভিযোগ করতে গেলে কর্তৃরত পুলিশ কর্মকর্তা আদালতে মামলা দায়েরের পরামর্শ প্রদান করেন।
হাসান আলী জানান, আমি বালু পাথর ব্যবসা করে জীবন জীবিকা নির্বাহ করে আসছি। আমার ব্যবসায়ীক কাজে ঘটনার দিন সকালে সুনামগঞ্জ শহরে আসার পর স্থানীয় সন্ত্রাসীরা আমার অনুপস্থিতি টের পেয়ে আমার বাড়ীতে হামলা চালিয়ে আমার স্ত্রী সন্তান ও মেয়ের জামাইকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করেছে। আমার স্ত্রী রাবেয়া খাতুনের মাথায় ৯টি সেলাই লেগেছে এবং আমার ঘর থেকে নগদ ২ লাখ টাকা, র্স্বনালংকার চুরি করিয়া নিয়া যায় এবং আমার বসত ঘরের দরজা জানালা বাইরাইয়া ভেঙ্গে ব্যাপক ক্ষতি সাধন করে। আমি ন্যায় বিচারের আশায় আদালতে মামলা দায়ের করেছি।

নিউজবিজয়/এফএইচএন

👉 নিউজবিজয় ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন ✅

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার দিন।

NewsBijoy24.Com

নিউজবিজয়২৪.কম একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল। বস্তুনিষ্ঠ ও তথ্যভিত্তিক সংবাদ প্রকাশের প্রতিশ্রুতি নিয়ে ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। উৎসর্গ করলাম আমার বাবার নামে, যাঁর স্নেহ-সান্নিধ্যের পরশ পরিবারের সুখ-দু:খ,হাসি-কান্না,ব্যথা-বেদনার মাঝেও আপার শান্তিতে পরিবার তথা সমাজে মাথা উচুঁ করে নিজের অস্তিত্বকে মেলে ধরতে পেরেছি।

নাটোরে পূর্ব শত্রুতার জেরে যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ!

তাহিরপুরের পল্লীতে গৃহবধুকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা ও লুটপাটের অভিযোগ

প্রকাশিত সময় :- ০৯:০২:১৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ৫ জুন ২০২২

সুনামগঞ্জের তাহিরপুরের পল্লীতে গৃহবধুকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা ও লুটপাটের অভিযোগে আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। রবিবার দুপুরে তাহিরপুর জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ৭জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়। ঘটনাটি ঘটে গত ৩০ মে ২০২২ইং রোজ সোমবার সকাল অনুমান ১০ ঘটিকায় তাহিরপুর উপজেলার উত্তর মুখশেদপুর গ্রামের হাসেন আলীর বাড়ীতে।
মামলা সুত্রে জানা যায়, গত সোমবার সকাল অনুমান ১০ ঘটিকায় বাড়ীর মালিক হাসান আলী বাড়ীতে না থাকার সুযোগে দক্ষিন মুখশেদপুর গ্রামের আবুল কালামের পুত্র কামরুল ইসলাম ও আবুল কালামের নেতৃত্বে পুরান লাউড়গ্রামের মৃত কাদির মিয়ার পুত্র রফিক মিয়া, বাচ্চু মিয়ার পুত্র রুবেল মিয়া, দক্ষিন মুখশেদপুর গ্রামের জয়নাল মিয়ার পুত্র আকাইদ মিয়া, রবি আউয়ালের পুত্র হেলাল মিয়া এবং মাছিরপুর গ্রামের মৃত সিদ্দেক আলীর পুত্র আহমদ আলীসহ আরও অজ্ঞাত ৩/৪জনের সংঘবদ্ধ একটি সন্ত্রাসী দল দেশীয় অস্ত্র সস্ত্র নিয়ে হাসান আলীর বাড়ীতে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুর, লুটপাট ও হাসান আলীর স্ত্রী গৃহবধু রাবেয়া খাতুনকে কুপিয়ে মাথায় গুরুতর রক্তাক্ত জখম করে। এসময় হাসান আলীর মেয়ের জামাই শিপন মিয়া ও কন্যা নয়নতারা এগিয়ে আসলে তাদেরকেও কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। এ সময় ঘরে থাকা নগদ ২ লাখ টাকা, স্বর্নের অলংকার, সোকেইসে থাকা মূল্যবান দ্রব্যদি চুরি করিয়া প্রায় দেড় লাখ টাকা এবং ঘরে দরজা জানালা ভেঙ্গে প্রায় আরও ২০ হাজার টাকার ক্ষতি সাধন করে। গুরুতর আহত গৃহবধু রাবেয়া খাতুনকে সুনামগঞ্জ সদর হাপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে এবং সাক্ষী শিপন মিয়া ও নয়ন তারাকেও হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। এ ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রবাহের চেষ্টা করছে স্থানীয় একটি প্রভাবশালী চক্রের সদস্যরা। থানায় অভিযোগ করতে গেলে কর্তৃরত পুলিশ কর্মকর্তা আদালতে মামলা দায়েরের পরামর্শ প্রদান করেন।
হাসান আলী জানান, আমি বালু পাথর ব্যবসা করে জীবন জীবিকা নির্বাহ করে আসছি। আমার ব্যবসায়ীক কাজে ঘটনার দিন সকালে সুনামগঞ্জ শহরে আসার পর স্থানীয় সন্ত্রাসীরা আমার অনুপস্থিতি টের পেয়ে আমার বাড়ীতে হামলা চালিয়ে আমার স্ত্রী সন্তান ও মেয়ের জামাইকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করেছে। আমার স্ত্রী রাবেয়া খাতুনের মাথায় ৯টি সেলাই লেগেছে এবং আমার ঘর থেকে নগদ ২ লাখ টাকা, র্স্বনালংকার চুরি করিয়া নিয়া যায় এবং আমার বসত ঘরের দরজা জানালা বাইরাইয়া ভেঙ্গে ব্যাপক ক্ষতি সাধন করে। আমি ন্যায় বিচারের আশায় আদালতে মামলা দায়ের করেছি।

নিউজবিজয়/এফএইচএন