ঢাকা ০৬:০৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঈদ মুবারক

কালীগঞ্জে মধ্যযুগীয় কায়দায় কিশোরকে নির্যাতন

লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলায় টিউবয়েলের সকেট কুড়িয়ে পাওয়াকে কেন্দ্র করে সোহান নামে ১৪ বছরের এক শিশুকে দু’হাত পিছনে বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় বাঁশ ডলা দিয়ে নির্মম নির্যাতন করার অভিযোগ উঠেছে।
গত ২ রা এপ্রিল ( রবিবার) দুপুর ১২ টার দিকে উপজেলার ভোটমারী ইউনিয়নের ব্যাঙ্গেরহাট এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটেছে। নির্যাতনের সময় শিশুটির হাতবাঁধা একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে লালমনিরহাট জেলা তথা সারা দেশে ধিক্কার পড়ে যায়।

জানা গেছে, কিশোর সোহান রাস্তা দিয়ে পথ হাঁটতে ছিল এমন সময় তার পায়ে কি যেন লেগে সে আঘাত পায়। পরে সে দেখে টিউবয়েলের সকেট ছিল সেটি। সে সকেটটি নিয়ে চলে যাচ্ছিলো এমন সময় তাকে চোর মনে করে মারধর শুরু করে এলাকার লোকজন।

পরে তাকে একটি মাছের প্রজেক্টে নিয়ে গিয়ে বেঁধে প্লাস দিয়ে তার চামরা টানা হয়। রশি দিয়ে বেঁধে রড দিয়ে মারধর করা হয়। এমনকি বাঁশ দিয়ে বাঁশ ডলা দিয়ে সোহান নামের ওই কিশোরকে দুপুর হতে বিকেল ৪ টা পযন্ত মধ্যযুগীয় কায়দায় প্রকাশ্যে নির্যাতন করা হয়েছে।
এ ধরনের অনাকাঙ্খিত ঘটনা নতুন কিছু নয়। মানবিক বিপর্যয় কত নিচে নামতে পারে তা ওই কিশোরকে নির্যাতনের চিত্র থেকে স্পষ্ট হয়ে ওঠেছে। নির্যাতনের শিকার ওই কিশোর বর্তমানে সু- চিকিৎসার জন্য কালিগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি রত রয়েছেন।
তার শরীরে নানা রকম নির্যাতনের চিহ্ন রয়েছে। বর্তমানে সে চলাফেরা পযর্ন্ত করতে পারছে না। ওই কিশোরের ভর্তি রেজি: নং ৩৩৬৩/২২ বেড নং ০৬। সে উত্তর জামির বাড়ি এলাকার মজিবর রহমানের ছেলে।
ওই কিশোরের মামা বাদি হয়ে কালিগঞ্জ থানা একটি অভিযোগ দায়েরর প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানা গেছে। ওই কিশোরকে নির্যাতনের কিছু স্থিরচিত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়।
এ ঘটনায় সোহান জানান, আমাকে বেঁধে রড দিয়ে মেরেছে, ভুট্রাক্ষেতে নিয়ে মেরে ফেলার হুমকি দিয়েছে। আমি তাদেরকে চিনি না তবে দেখলে চিনতে পারবো। বর্তমানে আমি চলাফেরা করতে পারছি না। তবে নির্মম এই ঘটনাটির জন্য অভিযুক্তদের দ্রুত দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি কামনা করেছেন স্থানীয়রা।

নিউজবিজয়২৪/এফএইচএন

👉 নিউজবিজয় ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন ✅

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার দিন।

NewsBijoy24.Com

নিউজবিজয়২৪.কম একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল। বস্তুনিষ্ঠ ও তথ্যভিত্তিক সংবাদ প্রকাশের প্রতিশ্রুতি নিয়ে ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। উৎসর্গ করলাম আমার বাবার নামে, যাঁর স্নেহ-সান্নিধ্যের পরশ পরিবারের সুখ-দু:খ,হাসি-কান্না,ব্যথা-বেদনার মাঝেও আপার শান্তিতে পরিবার তথা সমাজে মাথা উচুঁ করে নিজের অস্তিত্বকে মেলে ধরতে পেরেছি।

কালীগঞ্জে মধ্যযুগীয় কায়দায় কিশোরকে নির্যাতন

প্রকাশিত সময় :- ০৬:০৩:৪০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৪ এপ্রিল ২০২৩

লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলায় টিউবয়েলের সকেট কুড়িয়ে পাওয়াকে কেন্দ্র করে সোহান নামে ১৪ বছরের এক শিশুকে দু’হাত পিছনে বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় বাঁশ ডলা দিয়ে নির্মম নির্যাতন করার অভিযোগ উঠেছে।
গত ২ রা এপ্রিল ( রবিবার) দুপুর ১২ টার দিকে উপজেলার ভোটমারী ইউনিয়নের ব্যাঙ্গেরহাট এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটেছে। নির্যাতনের সময় শিশুটির হাতবাঁধা একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে লালমনিরহাট জেলা তথা সারা দেশে ধিক্কার পড়ে যায়।

জানা গেছে, কিশোর সোহান রাস্তা দিয়ে পথ হাঁটতে ছিল এমন সময় তার পায়ে কি যেন লেগে সে আঘাত পায়। পরে সে দেখে টিউবয়েলের সকেট ছিল সেটি। সে সকেটটি নিয়ে চলে যাচ্ছিলো এমন সময় তাকে চোর মনে করে মারধর শুরু করে এলাকার লোকজন।

পরে তাকে একটি মাছের প্রজেক্টে নিয়ে গিয়ে বেঁধে প্লাস দিয়ে তার চামরা টানা হয়। রশি দিয়ে বেঁধে রড দিয়ে মারধর করা হয়। এমনকি বাঁশ দিয়ে বাঁশ ডলা দিয়ে সোহান নামের ওই কিশোরকে দুপুর হতে বিকেল ৪ টা পযন্ত মধ্যযুগীয় কায়দায় প্রকাশ্যে নির্যাতন করা হয়েছে।
এ ধরনের অনাকাঙ্খিত ঘটনা নতুন কিছু নয়। মানবিক বিপর্যয় কত নিচে নামতে পারে তা ওই কিশোরকে নির্যাতনের চিত্র থেকে স্পষ্ট হয়ে ওঠেছে। নির্যাতনের শিকার ওই কিশোর বর্তমানে সু- চিকিৎসার জন্য কালিগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি রত রয়েছেন।
তার শরীরে নানা রকম নির্যাতনের চিহ্ন রয়েছে। বর্তমানে সে চলাফেরা পযর্ন্ত করতে পারছে না। ওই কিশোরের ভর্তি রেজি: নং ৩৩৬৩/২২ বেড নং ০৬। সে উত্তর জামির বাড়ি এলাকার মজিবর রহমানের ছেলে।
ওই কিশোরের মামা বাদি হয়ে কালিগঞ্জ থানা একটি অভিযোগ দায়েরর প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানা গেছে। ওই কিশোরকে নির্যাতনের কিছু স্থিরচিত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়।
এ ঘটনায় সোহান জানান, আমাকে বেঁধে রড দিয়ে মেরেছে, ভুট্রাক্ষেতে নিয়ে মেরে ফেলার হুমকি দিয়েছে। আমি তাদেরকে চিনি না তবে দেখলে চিনতে পারবো। বর্তমানে আমি চলাফেরা করতে পারছি না। তবে নির্মম এই ঘটনাটির জন্য অভিযুক্তদের দ্রুত দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি কামনা করেছেন স্থানীয়রা।

নিউজবিজয়২৪/এফএইচএন